Connect with us

ঢাকা

আগামীকাল পিডিসি এ্যালামনাই এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ নির্বাচন

নিজস্ব প্রতিনিধি

Published

on

Dental Times

আগামীকাল ৯ই এপ্রিল বহুল প্রতীক্ষিত পাইওনিয়ার ডেন্টাল কলেজ এ্যালামনাই এ্যাসোসিয়েশন এর সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সভাপতি, সিনিয়র সহ-সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, অর্থ সম্পাদক, সহ-দপ্তর সম্পাদক, গবেষনা ও মান উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক, সহ-উচ্চশিক্ষা ও প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এই ৭ টি গুরুত্বপূর্ণ পদে নির্বাচন হতে যাচ্ছে।

আগামীকাল সভাপতি পদে ডাঃ গাজী জাসেদ আহমেদ (পিডিসি-২) এবং ডাঃ শফিউর রহমান পরাগ (পিডিসি-৫) নির্বাচন করবেন। সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে ডাঃ এটিএম নজরুল ইসলাম (পিডিসি-২) এবং ডাঃ কামরুল হাসান ডলার (পিডিসি-৫) নির্বাচন করবেন।

সাধারণ সম্পাদক পদে ডাঃ মামুনুর রশিদ (পিডিসি-৩) এবং ডাঃ ফিদা হক পিলন (পিডিসি-৫) নির্বাচন করবেন। কোষাধ্যক্ষ পদে ডাঃ সিফাত উদ্দিন খান(পিডিসি-১০) এবং ডাঃ কাজী আরিফুল ইসলাম(পিডিসি-৭) নির্বাচন করবেন। সহ-দপ্তর সম্পাদক পদে ডাঃ আফসানা হক (পিডিসি-১৬),ডাঃ সালমান সামাদ (পিডিসি-১৮) এবং ডাঃ আরাফাত মোর্শেদ সিফাত (পিডিসি-২০) নির্বাচন করবেন এবং যেকোন দুইজন নির্বাচিত হবেন।

গবেষনা ও মান উন্নয়ন সম্পাদক পদে ডাঃ সজিব কুমার বাড়ৈ(পিডিসি-১৫) এবং ডাঃ তাহসিন আহমেদ(পিডিসি-১৬) নির্বাচন করবেন। সহ উচ্চশিক্ষা ও প্রশিক্ষন বিষয়ক সম্পাদক পদে ডাঃ রিজওয়ান হিমেল(পিডিসি-১৫), ডাঃ তাহিয়া মনসুর (পিডিসি-১৬) এবং ডাঃ রওশান নাহির (পিডিসি-১৮) নির্বাচন করবেন এবং যেকোন দুইজন নির্বাচিত হবেন।

আগামীকাল শুক্রবার সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত নির্বাচন কমিশন নির্ধারিত ওয়েবসাইটে অনলাইন ভোটিং পদ্ধতিতে ভোট গ্রহন শুরু হবে।

উল্লেখ্য, এর আগে গঠনতন্ত্র মোতাবেক গত ২০ মার্চ বাকি পদে অন্য প্রার্থীদের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী ঘোষনা করে নির্বাচন কমিশন।

Advertisement
Click to comment

ঢাকা

‘বিডিএস পেশাগত পরীক্ষার ফলাফল দ্রুত প্রকাশ করা হবে’

নিজস্ব প্রতিনিধি

Published

on

Dental Times

করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে যাওয়া ও লকডাউন এর কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অধিভুক্ত বিডিএস আগস্ট ২০২০ ও নতুন কারিকুলাম যথাক্রমে মে ও নভেম্বরের ২০২০ এর পেশাগত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় চলতি বছরে। করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় কর্তৃপক্ষ বেশ কয়েকবার সময় পরিবর্তনের পর এ বছরের জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি ব্যাপী পরীক্ষাটি অনুষ্ঠিত হয়।

পেশাগত পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের বিষয় ডেন্টাল টাইমস কথা বলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডাঃ শাহরিয়ার নবী’র সাথে। তিনি জানান, “বিডিএস পেশাগত পরীক্ষার ফলাফল তৈরীর প্রক্রিয়া চলছে । পরীক্ষার ফলাফল দ্রুত প্রকাশ করা হবে।’

পেশাগত পরীক্ষার ফলাফল ঈদের আগে দেয়ার কোন সম্ভাবনা আছে কি না এমন প্রশ্নের উত্তরে অধ্যাপক ডাঃ শাহরিয়ার নবী ডেন্টাল টাইমসকে জানান, – “অল্প সময়ে এমবিবিএস পেশাগত পরীক্ষার ফলাফল দেয়া সম্ভব হয়েছে৷ চেষ্টা করছি দ্রুত প্রকাশ করার। কিন্তু করোনা পরিস্থিতি তুলনামূলক খারাপ হওয়ায় কাজ কঠিন হয়ে গিয়েছে।”

উল্লেখ্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অধিভুক্ত ৪২টি মেডিকেল কলেজের এমবিবিএস থার্ড প্রফেশনাল পরীক্ষা চলতি বছরের ২৪ জানুয়ারি থেকে শুরু হয়ে শেষ হয়েছিল মার্চের ১০ তারিখে। করোনা পরিস্থিতে কয়েকবার পেছানোর পর পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছিল এবং দ্রুত সময়ের মধ্যে ফল প্রকাশও সম্ভব হয়েছে।

Continue Reading

ডেন্টিস্ট ডে

এসএসএমসি ডেন্টাল ইউনিটে ‘ডেন্টিস্ট ডে’ পালন

নিজস্ব প্রতিনিধি

Published

on

157258035_262179932069334_33759881694596948_n
157296993_2739381286321969_238555825766070527_n
158068058_231414005385352_3171945537091563886_n
158334074_261490202132016_4822034911464693366_n
157463731_358350471970239_2097582552289190708_n
157258035_262179932069334_33759881694596948_n 157296993_2739381286321969_238555825766070527_n 158068058_231414005385352_3171945537091563886_n 158334074_261490202132016_4822034911464693366_n 157463731_358350471970239_2097582552289190708_n

প্রতি বছরের ন্যায় এবারো ৬ই মার্চ ” World Dentist Day ” উপলক্ষে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ডেন্টাল ইউনিট এক বর্নাঢ্য র‍্যালি ও র‍্যালি পরবর্তী কেক কাটা ও আলোচনা সভার আয়োজন করে। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসাবে ছিলেন স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে অধ্যক্ষ ডাঃ নুরুল হুদা লেলিন ।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মিটফোর্ড হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ ব্রিগ্রেডিয়ার জেনঃ রশিদ-উন-নবী , ওরাল হেলথ ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডাঃ আশিষ কুমার বণিক এবং কলেজটির উপাধ্যক্ষ ডাঃ জি এম আকাইদ এসএসএমসি। অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন কলেজটির ডেন্টাল ইউনিট প্রধান ডাঃ আমিনুল ইসলাম পান্না।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ডাঃ মজনু মিয়া ও সাধারন সম্পাদক ডাঃ মাইদুল ইসলাম নাঈম। উল্লেখ্য যে প্রতিবছরই বাংলাদেশের মধ্যে সবচেয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে ডেন্টিস্ট ডে পালন করা হয় স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ডেন্টাল ইউনিটে, এবার ইউনিটের দশম বর্ষে এসেও তার ব্যাতিক্রম হয় নি।

এবারের আলোচনার বিষয় ছিল “Scopes of Dentistry vs Tin Anniversary of SSMC Dental Unit” আলোচনা সভার বিষয় নিয়ে সবার মাঝে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক ডাঃ আশিষ কুমার বণিক এবং সর্বশেষে অনুষ্ঠানের সভাপতি ডাঃ আমিনুল ইসলাম পান্না’র বক্তব্য দিয়ে আয়োজন সমাপ্ত হয়।

এরপর অনুষ্ঠিত হয় অনুষ্ঠানের অন্যতম আকর্ষণ র‍্যাফেল ড্র। র‍্যাফেল ড্রে এর বিজয়ীদের হাতে পুরষ্কার তুলে দেন আমাদের আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ। শিক্ষকমন্ডলী,ইন্টার্ন ডাক্তার, বিডিএস এবং এমবিবিএস এর নানান বর্ষের শিক্ষার্থীদের প্রাণবন্ত অংশগ্রহণ অনুষ্ঠানটি সফল ও সার্থক হয়।

Continue Reading

Campus News

মার্কস মেডিকেল কলেজ ডেন্টাল ইউনিটে ডেন্টিস্ট ডে উদযাপন

নিজস্ব প্রতিনিধি

Published

on

Dental Times

আজ ৬ মার্চ, মার্কস মেডিকেল কলেজ ডেন্টাল ইউনিটের আয়োজনে “ডেন্টিস্ট ডে“ উপলক্ষে মিরপুর ১৪ থেকে র‍্যালি শুরু হয়।


“বিডিএস না তো দাঁতের ডাক্তার না।” প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে র‍্যালির আয়োজন হয়া। কলেজের ডেন্টাল ইউনিট প্রধান ডাঃ খন্দকার আলতাফ হোসেন সহ বিডিএস শিক্ষার্থীরা, ইন্টার্ণ চিকিৎসকবৃন্দ এবং বিভিন্ন বিভাগীয় অধ্যাপক ও শিক্ষকরার এতে অংশগ্রহণ করেন। সহযোগিতায় ছিল ”পেপসোডেন্ট”

Continue Reading

জাতীয়

উত্তরাধিকার বলে মামার পর ‘ভাগ্নে’ও এখন চিকিৎসক !

DENTALTIMESBD.com

Published

on

Dental Times

পাস করে নয়, আবার ট্রেনিং নিয়েও নয়। চট্টগ্রাম নগরীজুড়ে অন্তত শতাধিক ‘দাঁতের ডাক্তার’ আছেন, যারা ‘ডাক্তার’ সেজে বসেছেন উত্তরাধিকার সূত্রে কিংবা ‘দেখে দেখে’। মুদি দোকানের কর্মচারী কিংবা ক্লিনিকের পিয়ন যেমন দেখে দেখে ‘ডাক্তার’ বনে গেছেন, তেমনি ‘ডাক্তার’ দাদার চেয়ারে এখন নাতনিই ডাক্তার সেজে বসছেন, বাবার পর ছেলে নিয়েছেন ‘ডাক্তারির’ গুরুদায়িত্ব। পারিবারিক এই অদ্ভূত চিকিৎসা-ব্যবসায় মামার চেম্বারে ভাগ্নে, চাচার ক্লিনিকে ভাতিজাই রীতিমতো ডাক্তার বনে ‘দাঁতের চিকিৎসা’ দিয়ে চলেছেন।

এদের বেশিরভাগই পারিবারিক সম্পর্কের সূত্র ধরে এখন ‘দন্ত চিকিৎসক’— সাধারণভাবে ‘ডেন্টিস্ট’ হিসেবেই পরিচিতি তাদের। একই পরিবার থেকে উত্তরাধিকারসূত্রে আসা এসব ‘ডেন্টিস্ট’ চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন স্থানে করে যাচ্ছেন দন্তচিকিৎসার রমরমা ব্যবসা। চট্টগ্রাম নগরীর লালদিঘি, পতেঙ্গা, ইপিজেড, আগ্রাবাদ, চকবাজার, মুরাদপুর, জামালখানসহ নগরীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোতে এরকম বহু কথিত ডেন্টিস্টের খোঁজ মিলেছে— চিকিৎসার নামে যারা দাঁতের রোগীদের পকেট কাটছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এদের বেশিরভাগেরই শিক্ষাগত যোগ্যতা বড়জোর এসএসসি। কয়েকজন আছেন এইচএসসি পাশ। অনেকে আবার স্কুলের গণ্ডিও পেরোতে পারেননি। কিন্তু তারাই ‘দাঁতের ডাক্তার’ সেজে নগরীতে সাধারণ মানুষকে চিকিৎসার নামে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন।

এদের অপচিকিৎসার শিকার হয়ে দাঁতের চিকিৎসা করাতে এসে সহজ-সরল অনেক মানুষ ট্রান্সমিশন ডিজিসের শিকার হয়ে আক্রান্ত হচ্ছেন হেপাটাইসিস বি ও সি-তে।

দাদার চেম্বারে নাতনিই ‘ডেন্টিস্ট’

নগরীর লালদিঘি জেবি টাওয়ারের সরু গলির মধ্যে দোকান সাজিয়ে বসেছে ‘সুমন ডেন্টাল ক্লিনিক’। ছোট দুটি ঘরের একটিতে রোগী বসার জায়গা। অন্যটিতে রোগী দেখেন সুপ্রিয়া দেবী। তিনি সুমন ডেন্টাল ক্লিনিক মালিক সুমনের নাতনি। এইচএসসি পাস করার পর ফিরিঙ্গিবাজারের ইনস্টিটিউট অফ হেলথ টেকনোলজির অধীনে ৪ বছরের ডিপ্লোমা কোর্স শেষে তিনি এখন দাঁতের চিকিৎসা দিচ্ছেন। সুপ্রিয়া দেবীর সহকারী টিনা চৌধুরী। নবম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা তার। দাঁত বাঁধানো, ক্যাপ, ব্রিজ, ক্যাপল, স্ক্যানিং, ফিলিংসহ আকাবাঁকা দাঁতের চিকিৎসা করা হয় সুমন ডেন্টাল ক্লিনিকে— জানান সুপ্রিয়া দেবী।

সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) দুপুর দেড়টায় ওই ‘ডেন্টাল ক্লিনিকে’ গিয়ে দেখা গেল, আজাদ নামে একজন এসেছেন দাঁতের রুট ক্যানেল করাতে। সুপ্রিয়া দেবী জানান, রুট ক্যানেলে খরচ পড়ে প্রথমে ৩ হাজার টাকা। এটি করতে রোগীকে ৪ থেকে ৫ বার আসতে হয়। প্রথমে দাঁত ওপেন বা খোলা, তিনদিন পর ড্রেসিং, দ্বিতীয় বার এক্সরে করা হয়। এরপর পর্যায়ক্রমে রোগীদের ড্রেসিং, ক্যালসিয়াম ড্রেসিং, অ্যান্টিবায়েটিক ড্রেসিং দেওয়া হয়। তারপর রোগীর দাঁতে পরানো হয় ক্যাপ।

মুদি দোকানের চাকরি ছেড়ে ‘ডেন্টাল ক্লিনিক’

লালদিঘিতেই শুধু নয়, নগরীর অন্য জায়গাতেও আছে এমন দন্তচিকিৎসকের উপদ্রব। নগরীর আগ্রাবাদের চৌমুহনী ‘শেফা ডেন্টাল কেয়ারে’ দাঁতের চিকিৎসা দেন কামাল হোসেন। শিক্ষাগত যোগ্যতা অষ্টম শ্রেণী। তিনি আগে কর্ণফুলী মার্কেটে মুদি দোকানে সাড়ে চার হাজার টাকার বেতনে চাকরি করতেন তিনি। ওই মুদি দোকানের মালিকের মেয়ে জামাইয়ের ডেন্টাল ক্লিনিক ছিল লালদিঘিতে। ১৫-১৬ বছর আগে পরিচয়ের সেই সূত্র ধরে ওই ক্লিনিকে তার আসা-যাওয়া। সেখানে কিছুদিন হাতেকলমে শিখে তিনি চৌমুহনীতে ‘শেফা ডেন্টাল কেয়ার’ নামের ক্লিনিক খুলে বসেন। এখন তিনি দাঁত তোলা, বাধাই ও স্কেলিং ও ফিলিংয়ের কাজ করে থাকেন। তার ভিজিট প্রথমবার ৩০০ টাকা এবং পরে আসলে ২০০ টাকা।

নগরীর আসকারাবাদ পার হয়ে ঈদগাঁও কাঁচা রাস্তার মোড়ে ১০ বছর ধরে দাঁতের ডাক্তারি করছেন সুজা ইসলাম। তিনিও হাইস্কুলের গণ্ডি পেরোতে পারেননি। ঢাকায় এক ডেন্টাল কেয়ারে একসময় চা-পানি আনার কাজ করতেন। সেখানে থাকতে থাকতেই তার দাঁতের ডাক্তার হওয়া— জানান সুজা ইসলাম। ছোট্ট একটা ঘরে বসে রোগী দেখেন তিনি। রোগীদের দাঁত তোলা ও বাঁধাইয়ের কাজ করেন। পাশেই একটি মুদি দোকান। সেটি তার ছোট ছেলে রায়হানের।

মামার পর ভাগ্নেও এখন ‘ডাক্তার’

লালদিঘি পাড়ের সুমন ডেন্টাল ক্লিনিকের পাশেই প্রাইম ডেন্টাল ক্লিনিক। এখানে ৭ থেকে ৮ বছর ধরে রোগী দেখেন রমেন বড়ুয়া। তিনি টেকনিশিয়ান। আগে এখানে ‘চিকিৎসা’ দিতেন দিলীপ চৌধুরী। দিলীপ সম্পর্কে রমেনের মামা। মামার পর এখন উত্তরাধিকারসূত্রে ভাগ্নে অবতীর্ণ হয়েছেন ডাক্তারের ভূমিকায়। রমেন বড়ুয়ার শিক্ষাগত যোগ্যতা এসএসসি পাস। তবে রমেন দাবি করেছেন, দাঁত বাঁধাই, রুট ক্যানেল, স্কিলিং, ফিলিংসহ দাঁতের যাবতীয় চিকিৎসার কাজই তিনি জানেন। তবে প্রাইম ডেন্টাল ক্লিনিকে দাঁতের চিকিৎসায় ব্যবহৃত প্রয়োজনীয় কোনো যন্ত্রপাতিই দেখা যায়নি।

অ্যানেসথেসিয়া দিয়ে ‘ডেন্টিস্ট’ দিলীপের আধঘন্টার অপেক্ষা

লালদিঘির এই একই মার্কেটে পাওয়া গেল দন্তচিকিৎসার আরও একটি দোকান— দন্তসেবা প্লাস ক্লিনিক। ঢাকা থেকে ডিপ্লোমা করেছেন দাবি করে এর মালিক দিলীপ বড়ুয়া জানান, এখানে বয়স্ক ব্যক্তিদের দাঁত তুলে দাত বাঁধানোর কাজ করা হয়। চিকিৎসা পদ্ধতি বলতে গিয়ে তিনি জানান, প্রথমে বৃদ্ধ রোগী আসলে তার রোগ সম্পর্কে জানেন। তারপর নিজেই অ্যানেসথেসিয়া (সার্জারির সময় অজ্ঞান করা) দিয়ে রোগীকে অজ্ঞান করেন। আধঘন্টা অপেক্ষা করার পর রোগীর শরীর অবশ হয়ে গেলে তিনি তখন বৃদ্ধ রোগীর দাঁত তুলে ফেলেন। তবে যেসব বয়স্ক ব্যক্তি মদ্যপান করেন, আনেসথেসিয়া দেওয়ার পরও তারা অজ্ঞান হন না বলে জানান ‘ডেন্টিস্ট’ দিলীপ। এমন রোগীদের তিনি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। তবে অন্য রোগীদের জ্ঞান ফেরে ঘন্টাখানেক পর— এমন তথ্য জানিয়ে দিলীপ জানান, রোগীর জ্ঞান ফেরার পর রোগীর হাতে প্রেসক্রিপশন ধরিয়ে দেন তিনি। ৭ থেকে ১০ দিনের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ লিখে দেন প্রেসক্রিপশনে। দুই মাস পর আবার রোগীকে আসতে বলেন। পরে রোগী আসলে তারপর রোগীর দাঁত বানিয়ে লাগিয়ে দেন মাড়িতে। পুরো এই চিকিৎসা প্রক্রিয়া চালিয়ে নিতে রোগীর কাছ থেকে বড় একটা অংকের অর্থ নেন বলে জানান দিলীপ বড়ুয়া। সাধারণত ১৫ থেকে ১৭ হাজারের মধ্যে দাঁতের এই চিকিৎসা হয়ে থাকে বলে জানান তিনি।

লালদিঘিতেই কেবল জনাত্রিশেক ‘দন্ত চিকিৎসক’

জানা গেছে, লালদিঘির পাড়ে ২৮ থেকে ৩০ জন টেকনিশিয়ান রয়েছেন যারা নিয়মিত দাঁতের রোগী দেখে থাকেন। তারা যে ছোট ঘরটাতে রোগী দেখেন তাকে ‘ক্লিনিক’ বলে চালালেও দাঁতের চিকিৎসায় যেসব যন্ত্রপাতি দরকার তার ন্যূনতম কিছুই নেই।

সরেজমিন ঘুরে এসব চেম্বারে আসা রোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অধিকাংশ টেকনিশিয়ান নিজেদের ‘ডেন্টিস্ট’ পরিচয় দিলেও কাজের কাজ তারা কিছুই বোঝেন না। রোগীকে রুট ক্যানেল না করিয়ে দাঁতের ক্যাপও লাগিয়ে দেন বলে অভিযোগ রোগীদের।

‘চীনা ডাক্তারের পুরাতন লোক’

লালদিঘির পশ্চিম পাড়ের স্মৃতি ডেন্টাল কেয়ারে রোগী দেখেন নুর হোসেন। তার ভিজিটিং কার্ডে লেখা তিনি সিভিল সার্জন কর্তৃক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। কার্ডে আরও লেখা নূর হোসেন মো. মানিক ‘চীনা ডাক্তারের পুরাতন লোক’।

আমানত ডেন্টাল কেয়ারে রোগী দেখেন মো. ইমরান। তার নেমপ্লেটে লেখা আছে ‘চাইনিজ ডাক্তার টেকনিশিয়ান’। এর কারণ ব্যাখা করতে গিয়ে ইমরান জানান, তার বাবা মোহাম্মদ ইউনুছ লালদিঘি মোড়ে চাইনিজ ডেন্টাল ক্লিনিকের টেকনিশিয়ান ছিলেন। তার বাবা মারা গেছেন ১০ থেকে ১২ বছর হবে। এসএসসিতে ফেল করার পর তিনি বাবার চেম্বারে বসতে শুরু করেন। দাঁত বাঁধাইয়ের কাজ করেন তিনি। যেসব রোগীর দাঁত পড়ে যায়, তাদেরকে তিনি ফলস (নকল) দাঁত লাগিয়ে দেন। প্রথমে দাঁতের আকৃতি নিয়ে ডাইস বানিয়ে রাসায়নিক পাউডার মিশিয়ে ফলস দাঁতগুলো গরম পানিতে সেদ্ধ করেন। এরপর দাঁত লাগিয়ে দেন রোগীকে।

‘এমবিভিডিএডিডি’ ডিগ্রি মানে ‘মেম্বার অব ভিলেজ ডক্টর’

লালদিঘির পশ্চিম পাড়ে নবগ্রহ বাড়ি মন্দিরের পাশে পূবালী ডেন্টাল ক্লিনিকে রোগী দেখেন জিকে বড়ুয়া। তার ভিজিটিং কার্ডে লেখা আছে ‘এমবিভিডিএডিডি’। জিকে বড়ুয়ার কাছ থেকে এর পূর্ণ রূপ হিসেবে জানা গেছে— ‘মেম্বার অব ভিলেজ ডক্টর’।

এই দোকানের ঠিক পাশেই পূরবী ডেন্টাল কেয়ারে রোগী দেখেন ডেন্টিস্ট প্রকৃত রঞ্জন বড়ুয়া। তিনি বলেন, এই চেম্বারটি আগে ছিল তার জেঠা বা বাবার বড় ভাইয়ের। জেঠার সহকারী হিসেবে তিনি কাজ করতে গিয়ে দাঁতের চিকিৎসা শিখে ফেলেছেন। তার ফি ৩০০ টাকা। তিনি দাঁত বাঁধাই, স্কেলিং ও ফিলিংয়ের কাজ করেন। শিক্ষাগত যোগ্যতা তার এসএসসি।

দূরত্ব ১০০ গজ, তবু নেই অ্যাকশন

সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে লালদিঘির দূরত্ব প্রায় ১০০ গজ। তবু কেন কথিত ডেন্টিস্টদের বিরুদ্ধে বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হয় না— সে বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন সেখ ফজলে রাব্বি জানান, ‘এর আগে কথিত ডেন্টিষ্টদের বিরুদ্ধে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে অ্যাকশনে যাওয়া হয়েছিল। মোটা অংকের টাকা জরিমানাও করা হয়েছিল। কিন্তু করোনার সময়ে বিভিন্ন ব্যস্ততার কারণে বিষয়টি নিয়ে কিছু করা হয়নি।’ তবে এদের বিরুদ্ধে আবারও ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান সিভিল সার্জন সেখ ফজলে রাব্বি।

ট্রান্সমিশন ডিজিসের শিকার হচ্ছে অনেকেই

চট্টগ্রাম ইন্টারন্যাশনাল ডেন্টাল কলেজ হাসপাতালের সিনিয়র সহকারী পরিচালক ডা. সরওয়ার কামাল মুঠোফোনে চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘ডাক্তার বলে দাবি করলেও এসব কথিত দাঁতের ডাক্তার যথাযথ চিকিৎসা জানে না। যেমন একজন রোগীর দাঁতে রুট ক্যানেল করা যাবে না। কিন্তু তারা সেটাই করে। অনেক ক্ষেত্রে রুট ক্যানেল না করেও প্রাথমিক পর্যায়ে ফিলিং করে দিলে হয়। কিন্তু তারা রুট ক্যানেল করায় কিছুদিন পর রোগীর ক্ষত স্থানে ইনফেকশন তৈরি হয়। পরবর্তীতে তা ছড়িয়ে পড়ে রোগীর মাড়িকে ক্ষতিগ্রস্থ করে।

তিনি বলেন, ‘লালদিঘী, পতেঙ্গা, ইপিজেড, আগ্রাবাদ, চকবাজার, মুরাদপুরসহ নগরীর যেখানে-সেখানে গড়ে উঠা এসব কথিত দাঁতের ডাক্তারের চেম্বারে এমনকি স্টেরিলাইজেশন কিংবা অটোক্ল্যাপ মেশিনও নেই। ফলে রোগীরা দাঁতের চিকিৎসা করাতে এসে ট্রান্সমিশন ডিজিসের শিকার হয়ে হেপাটাইসিস বি ও সি-তে আক্রান্ত হন।’

বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিলে (বিএমডিসি) নিবন্ধিত চট্টগ্রামের চিকিৎসক ডা. খোরশেদুল ইসলাম চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘যারা বিএমডিসি কর্তক নিবন্ধিত চিকিৎসক, তারাই ডেন্টিস্ট। অলিগলির এসব কথিত ডেন্টিস্টের কোনো লাইসেন্সও নেই। কথিত এই ডাক্তারদের কাছে গিয়ে রুট ক্যানেলের পর ইনফেকশন হয়, মাড়ি ফুলে যায়। অনেক সময় ক্ষত স্থান থেকে রোগীর দাঁতে ক্যান্সারেরও সৃষ্টি হয়।’

ডেন্টিস্ট্রি পড়ানো হয় শুধু ৩৫ টি ডেন্টাল কলেজ/মেডিকেল কলেজ ডেন্টাল ইউনিটে

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে চারটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় – ঢাকা, রাজশাহী, চট্টগ্রাম, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এর চিকিৎসা অনুষদে ডেন্টিস্ট্রি অধিভুক্ত আছে। যার অধীনে বাংলাদেশের ৯টি সরকারি ও ২৬টি বেসরকারি ডেন্টাল কলেজ/ মেডিকেল কলেজ ডেন্টাল ইউনিটে ব্যাচেলর অব ডেন্টাল সার্জারী (বিডিএস) পড়ানো হয়। বিডিএস ডিগ্রী অর্জনের পর প্র্যাকটিস করার জন্য বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল থেকে সনদ নিতে হয়। এর জন্য সফলভাবে ইন্টার্নশিপ সম্পন্ন করতে হয়।

চট্টগ্রাম প্রতিদিন থেকে পরিমার্জিত

Continue Reading

ঢাকা

সাফেনা উইমেন্স ডেন্টাল কলেজে Intern Induction Program 21

নিজস্ব প্রতিনিধি

Published

on

Dental Times

সাফেনা উইমেন্স ডেন্টাল কলেজে আজ পহেলা ফেব্রুয়ারী নবীন ইন্টার্ন চিকিৎসকদের জন্য Intern Induction Program-2021 আয়োজন করা হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলেজটির অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ আক্কাস আলী ও নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবি।

Dental Times

আয়োজনে আরো উপস্থিত ছিলেন পরিচালক এবং কোর্স কো-অর্ডিনেটর ডাঃ মাহমুদুর রহমান পিয়াল । সার্বিক তত্বাবধায়নে ছিলেন অর্থডোন্টিকস এবং অর্থপেডিক্স বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডাঃ নুরুল ইসলাম। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন ডাঃ আতোকিয়া লাবিবা,ডাঃ জান্নাতুল ফেরদৌস মুন,ডাঃ মালিহা জাহিন এবং ডাঃফারহানা রিয়া।

এছাড়া অনুষ্ঠানে ডেন্টাল ইউনিটের সকল শিক্ষক-শিক্ষিকাবৃন্দ, সাফেনা উইমেন্স ডেন্টাল কলেজের সকল সদস্যবৃন্দ এবং নবীন ইন্টার্ন চিকিৎসকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উক্ত অনুষ্ঠানে বক্তারা নবীন ইন্টার্ন চিকিৎসকদের অভিনন্দন জানান ও উত্তোরত্তর সাফল্য কামনা করেন।

অধ্যাপক ডাঃ আক্কাস আলী ইন্টার্ন চিকিৎসকদের শপথ পাঠ করান। পরবর্তীতে নবীন ইন্টার্নদের মাঝে সৌজন্যমূলক উপহার ও ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদান, এবং দুপুরের খাবার বিতরনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি ঘটে।

Continue Reading
Dental Times
জাতীয়41 mins ago

দেশে করোনায় প্রাণহানি আবারও বেড়েছে

চট্টগ্রামে টিকাকেন্দ্রে হট্টগোল
করোনা পরিস্থিতি2 hours ago

চট্টগ্রামে টিকাকেন্দ্রে হট্টগোল, সড়ক অবরোধ

Dental Times
জাতীয়3 hours ago

কোটি কোটি টাকার ওষুধ মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার পথে!

Dental Times
জাতীয়1 day ago

দেশে শনাক্ত করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টঃ আইইডিসিআর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
জাতীয়3 days ago

যে যেখানে আছেন সেখানেই ঈদ উদযাপন করেন: প্রধানমন্ত্রী

Dental Times
জাতীয়3 days ago

সব বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
জাতীয়6 days ago

বেসরকারী মেডিকেল কলেজ ও ডেন্টাল কলেজ খসড়া আইন এর অনুমোদন

Dental Times
ছবি ও গল্প7 days ago

প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও ইন্টার্ন চিকিৎসকদের উদ্যোগে ইফতার বিতরণ

Dental Times
জাতীয়1 week ago

ঈদের আগে গণপরিবহন চালুর কথা ভাবছে সরকার

Dental Times
জাতীয়1 week ago

ঈদ পর্যন্ত ‘লকডাউন’ পর্যালোচনায় সরকার

Dental Times
আন্তর্জাতিক1 week ago

অক্সিজেনের জন্য টেন্ডুলকারের ১ কোটি রুপি

Dental Times
আন্তর্জাতিক1 week ago

উন্নয়নশীল দেশে টিকার ফর্মুলা দিতে রাজি নন গেটস

Dental Times
করোনা পরিস্থিতি1 week ago

করোনায় এক দিনে ৫৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২১৭৭

Dental Times
ঢাকা1 week ago

‘বিডিএস পেশাগত পরীক্ষার ফলাফল দ্রুত প্রকাশ করা হবে’

Dental Times
জাতীয়2 weeks ago

“ঢাকার অধিকাংশ করোনা টেস্টই তাঁর ল্যাবে”

Dental Times
জাতীয়2 weeks ago

এনআইএলএমআরসির পরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান আর নেই

Dental Times
আন্তর্জাতিক3 weeks ago

বাতাসের মাধ্যমে মূলত করোনা ছড়িয়ে থাকে

Dental Times
শিক্ষাঙ্গন4 weeks ago

পিডিসি এ্যালামনাই এ্যাসোসিয়েশন নির্বাচনের ফল

Dental Times
জাতীয়1 month ago

১৪ এপ্রিল থেকে ‘সর্বাত্মক লকডাউন’

Dental Times
ঢাকা1 month ago

আগামীকাল পিডিসি এ্যালামনাই এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ নির্বাচন

Dental Times
ছবি ও গল্প7 days ago

প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও ইন্টার্ন চিকিৎসকদের উদ্যোগে ইফতার বিতরণ

Dental Times
ঢাকা1 week ago

‘বিডিএস পেশাগত পরীক্ষার ফলাফল দ্রুত প্রকাশ করা হবে’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
জাতীয়6 days ago

বেসরকারী মেডিকেল কলেজ ও ডেন্টাল কলেজ খসড়া আইন এর অনুমোদন

Dental Times
করোনা পরিস্থিতি1 week ago

করোনায় এক দিনে ৫৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২১৭৭

Dental Times
জাতীয়1 day ago

দেশে শনাক্ত করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টঃ আইইডিসিআর

Dental Times
জাতীয়1 week ago

ঈদের আগে গণপরিবহন চালুর কথা ভাবছে সরকার

Dental Times
আন্তর্জাতিক1 week ago

উন্নয়নশীল দেশে টিকার ফর্মুলা দিতে রাজি নন গেটস

Dental Times
জাতীয়3 days ago

সব বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
জাতীয়3 days ago

যে যেখানে আছেন সেখানেই ঈদ উদযাপন করেন: প্রধানমন্ত্রী

চট্টগ্রামে টিকাকেন্দ্রে হট্টগোল
করোনা পরিস্থিতি2 hours ago

চট্টগ্রামে টিকাকেন্দ্রে হট্টগোল, সড়ক অবরোধ

Dental Times
আন্তর্জাতিক1 week ago

অক্সিজেনের জন্য টেন্ডুলকারের ১ কোটি রুপি

Dental Times
জাতীয়3 hours ago

কোটি কোটি টাকার ওষুধ মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার পথে!

Dental Times
জাতীয়41 mins ago

দেশে করোনায় প্রাণহানি আবারও বেড়েছে

Dental Times
জাতীয়1 week ago

ঈদ পর্যন্ত ‘লকডাউন’ পর্যালোচনায় সরকার

Advertisement

সম-সাময়িক

Enable Notifications From DentalTimesBD    OK No thanks