Connect with us

আন্তর্জাতিক

উহানবাসীর রক্তের নমুনা পরীক্ষা করবে চীন

Published

on

Dental Times

চীনের উহান থেকে মানবদেহে প্রথম ছড়িয়েছিল করোনাভাইরাস। তবে এটির উৎপত্তি সম্পর্কে এখনো স্পষ্ট করে জানা যায়নি। করোনার উৎস সম্পর্কে জানতে উহানের লাখো মানুষের রক্তের নমুনা পরীক্ষার উদ্যোগ নিয়েছে চীন। দেশটির সরকারি সূত্রের বরাতে বুধবার এ বিষয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন।

২০১৯ সালের শেষ ভাগে করোনা ছড়িয়ে পড়ার শুরুর দিকে সংগ্রহ করা দুই লাখের বেশি রক্তের নমুনা নতুন করে পরীক্ষার পরিকল্পনা করেছে চীন। এসব নমুনা উহান ব্লাড সেন্টারে সংরক্ষণ করা রয়েছে। এ পরীক্ষা করোনার উৎস এবং কখন ও কীভাবে এটি মানবদেহে ছড়িয়েছে, সেসব নিয়ে আরও সুনির্দিষ্ট ও স্বচ্ছ তথ্য জানাতে পারবে।

বিশ্বজুড়ে করোনা ছড়ানোর জন্য চীনকে দায়ী করে পশ্চিমা দেশগুলো। তবে চীন বরাবর এ অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছে। বিষয়টি নিয়ে গত ফেব্রুয়ারিতে উহানে গিয়ে অনুসন্ধান চালিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) তদন্তকারীরা। উহানবাসীর রক্তের নমুনা পরীক্ষার মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্য করোনার উৎস ও ছড়িয়ে পড়ার বিষয়ে স্বচ্ছতা আনবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

চীনা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সংরক্ষণ করা রক্তের নমুনা দুই বছর কার্যকর থাকবে। এ কারণে যথাযথ তথ্য পেতে আগামী নভেম্বরের মধ্যে রক্ত পরীক্ষার কাজ শেষ করতে হবে। চীনের ন্যাশনাল হেলথ কমিশনের একজন কর্মকর্তা সিএনএনকে বলেছেন, রক্তের নমুনা পরীক্ষার প্রস্তুতি প্রক্রিয়াধীন। নমুনার কার্যকারিতা নষ্ট হওয়ার আগেই পরীক্ষা করা হবে।

এ বিষয়ে নিউইয়র্কভিত্তিক কাউন্সিল অন ফরেন রিলেশন্সের বৈশ্বিক স্বাস্থ্যবিষয়ক জ্যেষ্ঠ ফেলো ইয়ানঝং হুয়াং বলেন, ‘এর মধ্য দিয়ে করোনার উৎস ও ছড়িয়ে পড়ার সময় সম্পর্কে জানা যাবে।’

তবে এ প্রক্রিয়ার সঙ্গে আন্তর্জাতিক পর্যায়ের বিশেষজ্ঞদের সম্পৃক্ত করার দাবি জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির মহামারিবিদ্যা বিষয়ের সহযোগী অধ্যাপক ম্যুরেন মিলার। তিনি বলেন, চীন সরকারের দেওয়া তথ্য–উপাত্ত আন্তর্জাতিক পর্যায়ে গ্রহণযোগ্য নাও হতে পারে।

Advertisement
Click to comment

আন্তর্জাতিক

করোনার উৎস সন্ধানে ‘শেষ সুযোগ’ ডব্লিউএইচওর

Published

on

Dental Times

করোনার উৎস সন্ধানে নতুন একটি টাস্কফোর্স গঠন করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। সংস্থাটি বলছে, কীভাবে করোনার সূত্রপাত হলো, তা খুঁজে বের করতেই এ টাস্কফোর্স। বলা হচ্ছে, এ টাস্কফোর্সই শেষ সুযোগ করোনার উৎস সন্ধানের জন্য। খবর ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির।

২০১৯ সালের শেষের দিকে এসে চীনের উহান শহরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। পরে তা মহামারির আকার ধারণ করে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। তবে ভাইরাসটির উৎস কী ছিল, তার জবাব করোনা শনাক্তের দেড় বছরের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও মেলেনি।

ডব্লিউএইচওর নতুন টাস্কফোর্সটি গঠন করা হয়েছে ২৬ জন বিশেষজ্ঞকে নিয়ে। নাম রাখা হয়েছে সায়েন্টিফিক অ্যাডভাইজরি গ্রুপ অন দ্য অরিজিনস অব নভেল প্যাথোজেনস (সাগো)। করোনা প্রাণী থেকে মানুষের শরীরে এসেছে, নাকি উহানের কোনো পরীক্ষাগারের দুর্ঘটনা থেকে ছড়িয়েছে, তা যাচাই করে দেখবে নতুন এ দল; যদিও পরীক্ষাগার থেকে করোনা ছড়ানোর বিষয়টি প্রথম থেকেই নাকচ করে এসেছে চীন।

এর আগেও অবশ্য করোনার উৎস সন্ধানে একটি দল গঠন করেছিল ডব্লিউএইচও। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতেই চীনে গিয়ে তদন্ত চালায় দলটি। করোনা বাদুড় থেকে মানুষের শরীরে এসেছে—এমন ধারণার ওপরই শেষ পর্যন্ত জোর দেয় তারা। তবে এ সিদ্ধান্তে আপত্তি জানান সংস্থার প্রধান তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস। তাঁর দাবি ছিল, পর্যাপ্ত তথ্য ও চীনের স্বচ্ছতার অভাবে তদন্তকাজে বিঘ্ন ঘটেছে।

ডব্লিউএইচওর এবারের টাস্কফোর্সে অবশ্য সবাই নতুন নয়। চীনে তদন্ত করতে যাওয়া আগের দল থেকেও ছয়জন রয়েছেন এতে। সাগোর সদস্যরা করোনা ছাড়াও ঝুঁকি সৃষ্টি করতে পারে—এমন জীবাণু নিয়েও তদন্ত করবেন। ডব্লিউএইচওর প্রধান বলেন, আগামী দিনে নতুন কোনো রোগের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে নতুন জীবাণুগুলো কোথা থেকে আসছে, তা বোঝাপড়া করা দরকার।

নতুন টাস্কফোর্সের বিষয়ে ডব্লিউএইচওর জরুরিবিষয়ক পরিচালক মাইকেল রেয়ান বলেন, করোনার উৎস সন্ধানে সাগোর তদন্তই হবে শেষ সুযোগ। আর জাতিসংঘে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত বলেছেন, সাগোর তদন্তকে ‘রাজনৈতিকীকরণ’ করা যাবে না।

এদিকে ডব্লিউএইচও এমন এক সময় টাস্কফোর্স গঠন করল, যখন উহানের লাখো মানুষের রক্তের নমুনা পরীক্ষার উদ্যোগ নিয়েছে চীন। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনের খবরে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালের শেষ ভাগে করোনা ছড়িয়ে পড়ার শুরুর দিকে সংগ্রহ করা দুই লাখের বেশি রক্তের নমুনা নতুন করে পরীক্ষার পরিকল্পনা করেছে চীন। এসব নমুনা উহান ব্লাড সেন্টারে সংরক্ষণ করা রয়েছে। এ পরীক্ষা করোনার উৎস এবং কখন ও কীভাবে এটি মানবদেহে ছড়িয়েছে, সেসব নিয়ে আরও সুনির্দিষ্ট ও স্বচ্ছ তথ্য জানাতে পারবে।

Continue Reading

আন্তর্জাতিক

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের পর এবার নতুন আতঙ্ক কলম্বিয়ান ভ্যারিয়েন্ট

Published

on

Dental Times

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের পর এবার নতুন আতঙ্ক হয়ে উঠেছে করোনাভাইরাসের কলম্বিয়ান ভ্যারিয়েন্ট। বেলজিয়ামের এক নার্সিং হোমে এই ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত সাত জনের মৃত্যুর পর আলোচনায় B-1-621 ভ্যারিয়েন্ট।

দেশটিতে মৃত্যু হওয়া প্রত্যেকেই ২ ডোজ ভ্যাকসিনগ্রহীতা ছিলেন। বয়স ছিল ৮০ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে। ওই নার্সিং হোমের কর্মীসহ মোট ২১ জনের দেহে মিলেছে করোনার নতুন ধরনটির সন্ধান।

ট্রু বার্গ নার্সিং হোম ম্যানেজার ক্যাথেলিন বয়ডার্স জানান, শুরুতে করোনা আক্রান্ত একজনের শারীরিক অবস্থা খারাপ হয়ে পড়ে। ক্রমেই আরও ছয়জন গুরুতর অসুস্থ হয় এবং মৃত্যু হয়। সবারই ডবল ডোজ টিকা নেয়া ছিল।

কলম্বিয়ায় এই মুহূর্তে ৯৫ শতাংশ করোনা আক্রান্তই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট সংক্রমিত হলেও ১ শতাংশের মতো রোগীর দেহে পাওয়া গেছে কলম্বিয়ান ভ্যারিয়েন্টের উপস্থিতি। যুক্তরাষ্ট্রের ২ শতাংশ সংক্রমিতের মধ্যে করোনার নতুন ধরনটির অস্তিত্ব মিলেছে। যুক্তরাজ্যে এ পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছে ৩৭ জন ।

ধারণা করা হচ্ছে, সম্প্রতি বিভিন্ন লাতিন দেশে ভ্রমণে গিয়ে আক্রান্ত হন তারা। কলম্বিয়ান ভ্যারিয়েন্ট করোনার অন্যান্য ধরনের তুলনায় বেশি সংক্রামক কী না সে বিষয়ে গবেষণা শুরু হয়েছে কয়েকটি দেশে।

Continue Reading

আন্তর্জাতিক

দুই ধরনের দুই ডোজ টিকায় হতে পারে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

Published

on

Dental Times

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দুই ধরনের টিকার দুই ডোজ নেওয়া নিয়ে গবেষণা চলছে। অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন গ্রুপের অধ্যাপক ম্যাথিউ স্ন্যাপ বলছেন, এক ডোজ অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও আরেক ডোজ ফাইজারের টিকা নিলে প্রাপ্তবয়স্কদের শরীর ঠান্ডা হয়ে যাওয়া, মাথাব্যথা ও মাংসপেশিতে ব্যথার মতো উপসর্গ দেখা দিতে পারে। তবে এগুলো খুব গুরুতর নয়। খবর বিবিসির।

অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন গ্রুপের অধ্যাপক ম্যাথিউ স্ন্যাপ বলেন, গবেষণায় যে এ ধরনের তথ্য পাওয়া যাবে, তা তাঁরা আশা করেননি।

গত ফেব্রুয়ারি মাসে দ্য কম-কভ নামে একটি গবেষণা পরিচালিত হয়। তাতে দেখা গেছে, প্রথম ডোজ টিকা নেওয়ার পরে অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিলে দীর্ঘ মেয়াদে সুরক্ষা পাওয়া যায়। করোনার নতুন ধরন থেকে সুরক্ষা পেতে ও সরবরাহ বিঘ্নিত হলে ক্লিনিকগুলোকে দুই ধরনের দুই ডোজ টিকা দিতে বলা হয়েছে।
কানাডার ওন্টারিও ও কুইবেক প্রদেশের কর্তৃপক্ষ বলছে, তারা শিগগিরই মিশ্র টিকা ব্যবহারের পরিকল্পনা নিয়েছে।

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই গবেষণায় ৫০ ঊর্ধ্ব ৮৩০ জন স্বেচ্ছাসেবককে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আগামী জুন মাসে এই গবেষণার পূর্ণ ফলাফল প্রকাশিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। গবেষণার প্রাথমিক তথ্য ল্যানসেট মেডিকেল জার্নালে একটি গবেষণা বিবরণীতে প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষণায় দেখা গেছে, যারা অ্যাস্ট্রাজেনেকার দুই ডোজ টিকা চার সপ্তাহের মধ্যে নিয়েছেন, তাঁদের প্রতি ১০ জনের মধ্যে একজনের জ্বর জ্বর ভাব দেখা গেছে।

অন্যদিকে যাঁরা অ্যাস্ট্রাজেনেকার এক ডোজ ও ফাইজারের আরেক ডোজ টিকা নিয়েছেন, তাঁদের ৩৪ শতাংশের মধ্যে জ্বর জ্বর ভাব দেখা দিয়েছে।

ট্রায়ালের প্রধান তদন্তকারী অধ্যাপক স্ন্যাপ বলেন, যাঁরা দুই ধরনের দুই টিকার ডোজ নিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে শরীর ঠান্ডা হয়ে যাওয়া, দুর্বলতা, মাথাব্যথা, অস্থিরতা ও মাংসপেশির ব্যথার মতো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।

গত এপ্রিল মাসে ১ হাজার ৫০ জন স্বেচ্ছাসেবীর ওপর মডার্না ও নোভাভ্যাক্সের মিশ্র টিকার গবেষণা চালানো হয়। দ্বিতীয় ডোজ টিকা নেওয়ার পরেও অনেকের মধ্যে দুর্বলতার মতো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

Continue Reading

আন্তর্জাতিক

অক্সিজেনের জন্য টেন্ডুলকারের ১ কোটি রুপি

Published

on

Dental Times

কেউ আইসিইউতে একটা বেড খুঁজছেন হন্যে হয়ে। কেউবা অক্সিজেন সিলিন্ডারের জন্য এ দুয়ার ও দুয়ার করছেন। কারও দরকার ওষুধপত্র, কারও চলছে অর্থের টানাটানি। করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা ভারতকে একেবারে নুইয়ে দিয়ে যাচ্ছে! প্রতিদিন তিন লাখের বেশি মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন, মারা যাচ্ছেন দু-তিন হাজার। শ্মশানগুলোতে লাশের সারি, রাস্তায় অ্যাম্বুলেন্সের আওয়াজ, হাসপাতালে স্বজনের আহাজারি…মন খারাপ করে দেওয়া সব দৃশ্য ভাসছে সংবাদমাধ্যমে।

এমন অবস্থায় হাত গুটিয়ে বসে থাকা তো যায় না! করোনার মধ্যে আইপিএল চলতে থাকা নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে ঠিকই, তবে আইপিএলের সঙ্গে জড়িত অনেকে ভারত সরকারের করোনা তহবিলে অর্থ সাহায্য দিয়েছেন। কাল আইপিএলে মোস্তাফিজুর রহমানের দল রাজস্থান রয়্যালস ও আরেক দল দিল্লি ক্যাপিটালসও অর্থ সাহায্য করার ঘোষণা দিয়েছেন। তা আইপিএলের সঙ্গে জড়িত না হলেও ভারতের ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় নাম শচীন টেন্ডুলকার আর কীভাবে বসে থাকেন!

ভারতীয় কিংবদন্তি ব্যাটসম্যানও কাল সাহায্যের হাত বাড়িয়ে এগিয়ে এসেছেন। ১ কোটি রুপি দান করেছেন অক্সিজেন সরবরাহের কাজে নেমে পড়া দাতব্য প্রতিষ্ঠান ‘মিশন অক্সিজেন’কে।

Dental Times

এখন পর্যন্ত করোনায় ভারতে দেড় কোটির বেশি মানুষ আক্রান্ত। মারা গেছেন দুই লাখের বেশি। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৩ হাজার ৬৪৫ জন। নির্বাচন, কুম্ভমেলা…কত কারণই আছে ভারতে চলমান করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের। এ ঢেউয়ে টালমাটাল ভারতকে সাহায্য করতে এরই মধ্যে অনেকে তহবিল সংগ্রহ করছেন, দান করে চলেছেন। দাতব্য অনেক প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু করেছে। এরই মধ্যে একটি হচ্ছে মিশন অক্সিজেন।

‘করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আমাদের স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে ভীষণ চাপের মুখে ফেলে দিয়েছে। কোভিডে গুরুতর অসুস্থ রোগীদের বেশি পরিমাণে অক্সিজেন সরবরাহ করা এ মুহূর্তে সবচেয়ে বেশি জরুরি। অন্তত এটা দেখে খুব ভালো লাগছে যে এ মুহূর্তে অনেক মানুষ কীভাবে অন্যের সাহায্যে এগিয়ে এসেছেন। ২৫০-এর বেশি তরুণ উদ্যোক্তা মিশন অক্সিজেন চালু করেছেন, যাতে অর্থ সংগ্রহ করে অক্সিজেন কনসেনট্রেটর আমদানি করা যায়, দেশজুড়ে হাসপাতালগুলোকে দেওয়া যায়’—কাল টুইটে লিখেছেন টেন্ডুলকার।

এই প্রতিষ্ঠানে দান করার পাশাপাশি টেন্ডুলকার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সবাইকে আহ্বান জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটিকে সাহায্য করার, যাতে প্রতিষ্ঠানটি আরও বেশি অর্থ পায়, তাতে অক্সিজেনের সরবরাহ আরও বেশি দেওয়া যাবে। ‘আমি এই কাজে কিছু অনুদান দিয়ে সাহায্য করেছি। আশা করি, তাদের এই মহৎ প্রচেষ্টা শিগগিরই ভারতজুড়ে আরও অনেক হাসপাতালে পৌঁছে যাবে। যখন মাঠে ক্রিকেট খেলতাম, আপনাদের সমর্থন আমার জন্য অমূল্য ছিল। আমার সাফল্যের বড় কারণ সেটি। আজ এ মহামারির সময়ে যাঁরা এভাবে কঠোর পরিশ্রম করছেন, তাঁদের সমর্থনেও আমাদের সবাইকে এক হতে হবে।’

টেন্ডুলকার তো আর মুখ ফুটে নিজের অনুদানের অঙ্ক জানানোর কথা নয়, সেটি জানা গেছে মিশন অক্সিজেনের বিবৃতিতে, ‘এ প্রয়োজনের সময়ে দেশজুড়ে হাসপাতালগুলোতে জীবন বাঁচানো অক্সিজেন কনসেনট্রেটর সরবরাহ করার লক্ষ্যে মিশন অক্সিজেনের প্রচেষ্টায় তাঁর (টেন্ডুলকার) এক কোটি রুপির অনুদান অনেক অনেক বেশি মন ছুঁয়ে যায়।’

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, দিল্লিভিত্তিক কয়েকজন উদ্যোক্তার যৌথ উদ্যোগ এ মিশন অক্সিজেন। গতকাল পর্যন্ত হিসাব, এরই মধ্যে সংগঠনটি সাড়ে ১৩ কোটি রুপির বেশি অর্থ জোগাড় করেছে। তাদের প্রাথমিক লক্ষ্য ছিল ১৫ কোটি রুপি জোগাড় করা। এ অর্থ দিয়ে ১০ লিটারের ১ হাজার অক্সিজেন কনসেনট্রেটর চীন থেকে আমদানি করবে সংগঠনটি। যেগুলো বিনা মূল্যে দেওয়া হবে হাসপাতাল-ক্লিনিকগুলোতে।

এখন পর্যন্ত চীন থেকে ১ হাজার ৩৬৫ অক্সিজেন কনসেনট্রেটর আমদানির ক্রয়াদেশ দিয়েছে মিশন অক্সিজেন। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, সেগুলো এরই মধ্যে জাহাজে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। গতকাল থেকে সেগুলো হাসপাতালগুলোতে সরবরাহ করা শুরু করার কথা ছিল মিশন অক্সিজেনের। দ্রুত সরবরাহ নিশ্চিত করতে ভারতের সেনাবাহিনী ও প্রশাসনের অনেক পক্ষসহ নানা সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ এরই মধ্যে তারা করেছে বলে জানিয়েছে মিশন অক্সিজেন।

Continue Reading

আন্তর্জাতিক

উন্নয়নশীল দেশে টিকার ফর্মুলা দিতে রাজি নন গেটস

Published

on

Dental Times

উন্নয়নশীল দেশগুলোতে টিকার ফর্মুলা দিতে রাজি নন বিল গেটস। টিকা তৈরির জন্য উন্নয়নশীল দেশগুলোকে ফর্মুলা দিতে মেধাস্বত্ব সম্পত্তি আইন পরিবর্তনের বিষয়টিও খুব বেশি কাজে আসবে না বলে মনে করেন মাইক্রোসফটের সহপ্রতিষ্ঠাতা। যুক্তরাজ্যের দ্য ইনডিপেনডেন্ট পত্রিকার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিল গেটসের এ মন্তব্যে সমালোচনার ঝড় বইছে।

স্কাই নিউজকে দেওয়া সাম্প্রতিক এক সাক্ষাৎকারে বিল গেটসকে উন্নয়নশীল দেশগুলোকে টিকা দিয়ে মেধাস্বত্ব আইন পরিবর্তন নিয়ে প্রশ্ন করা হয়। এর ব্যাখ্যায় বিল গেটস বলেন, ‘বিশ্বে অনেক টিকা কারখানা আছে। মানুষ টিকার নিরাপত্তার বিষয়টিকে অনেক বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। আগে কখনো তৈরি করা যায়নি এমন টিকা স্থানান্তরের বিষয়টি অভূতপূর্ব। কারণ, তা কেবল আমাদের অনুদান এবং দক্ষতার কারণেই ঘটতে পারে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে যা আমাদের আটকে দিচ্ছে তা মেধাস্বত্ব সম্পদ। এর অর্থ এই নয় যে কোনো টিকা কারখানা অলস বসে আছে, যারা নিয়ন্ত্রকদের অনুমতি নিয়ে জাদুবলে নিরাপদ টিকা তৈরি করে ফেলবে। টিকা তৈরি করতে হলে এসব বিষয় পরীক্ষা করতে হবে। প্রতিটি পরীক্ষা পদ্ধতিকে অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে দেখতে হবে।’

বিজনেস ইনসাইডার-এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিল গেটস বলেছেন, ফাইজার, অ্যাস্ট্রাজেনেকা, মডার্না ও জনসন অ্যান্ড জনসনের মতো প্রতিষ্ঠান টিকার ফর্মুলা শেয়ারের ঘটনা ইতিমধ্যে ঘটিয়েছে।

বিল গেটস বলেন, ধনী দেশগুলো নিজেদের জন্য টিকাকে অগ্রাধিকার দিয়েছে, তা দেখে তাঁর আশ্চর্য লাগেনি। তাঁর ভাষ্য, ‘আমরা যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যে ৩০ বছর বয়সীদেরও টিকা দিচ্ছি। কিন্তু ব্রাজিল ও দক্ষিণ আমেরিকায় ৬০ বছর বয়সী সবাইকে টিকা দিতে পারিনি, যা যৌক্তিক নয়।’

Continue Reading
Dental Times
জাতীয়22 mins ago

স্কুলশিক্ষার্থীদের পরীক্ষামূলক করোনার টিকা দেওয়া শুরু

Dental Times
আন্তর্জাতিক41 mins ago

উহানবাসীর রক্তের নমুনা পরীক্ষা করবে চীন

Dental Times
আন্তর্জাতিক52 mins ago

করোনার উৎস সন্ধানে ‘শেষ সুযোগ’ ডব্লিউএইচওর

Dental Times
জীবন ও কর্ম21 hours ago

সেরা অভিনেত্রীর মনোনয়ন পেলেন বাঁধন

Dental Times
পড়ালেখা1 day ago

২৯ অক্টোবরেই ৪৩তম বিসিএস প্রিলি

Dental Times
শিক্ষাঙ্গন4 days ago

ডেন্টিস্ট সম্পর্কে প্রচলিত ধারণা বনাম বাস্তবতা

BDF বিডিএফ
সংগঠন6 days ago

বিডিএফ এর ৫২ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা

আত্মসমর্পণের পর জামিন : স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজি আজাদ
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর1 week ago

আত্মসমর্পণের পর জামিন : স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজি আজাদ

Dental Times
Campus News1 week ago

৫টি ডেন্টাল চেয়ার ক্রয়ে লুট পৌনে ২ কোটি টাকা

UDC 25th years Celebration
ঢাকা2 weeks ago

ইউনিভার্সিটি ডেন্টাল কলেজের ২৫ বছর পূর্তি

Dental Times
বিএমডিসি2 weeks ago

ছয় ভুয়া চিকিৎসকের রেজিস্ট্রেশন বাতিল করলো বিএমডিসি

Dental Times
সংগঠন3 weeks ago

আইএপিডির সদস্য পদ পেলো বিএসপিডি

Dental Times
বিশেষ প্রতিবেদন3 weeks ago

ডোপ টেস্টের কোনো নীতিমালা নেই : টেস্টে পজিটিভ মানে তাকে মাদকাসক্ত বলা যাবেনা’

ঘাতক ড্রাইভারের শাস্তি চেয়ে পথে সরব ইউডিসি শিক্ষার্থীরা
ঢাকা4 weeks ago

ঘাতক ড্রাইভারের শাস্তি চেয়ে পথে সরব ইউডিসি শিক্ষার্থীরা

Dental Times
Dental Admission2 months ago

সরকারি ও বেসরকারি ডেন্টালের ভর্তি পরীক্ষা ১০ সেপ্টেম্বর

Dental Times
আন্তর্জাতিক2 months ago

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের পর এবার নতুন আতঙ্ক কলম্বিয়ান ভ্যারিয়েন্ট

Dental Times
করোনা পরিস্থিতি3 months ago

সিনোফার্মের ৩০ লাখ টিকা ঢাকায়

Dental Times
জাতীয়3 months ago

‘পরিস্থিতি মোকাবিলায় ভাইভা ছাড়া ডাক্তার নার্স নিয়োগ হবে’

Dental Times
জাতীয়3 months ago

দেশে ডেন্টাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা সময়ের দাবি – অধ্যাপক ডা. বুলবুল

Dental Times
জাতীয়3 months ago

একদিনে ঢাকায় আরও ৭৯ ডেঙ্গু রোগী

Advertisement

সম-সাময়িক

Subscribe for notification