Connect with us

Uncategorized

দেশের বাইরে ব্যাসিক বিষয়ে ক্যারিয়ার নিয়ে কথা বলেছেন ডাঃ এহসানুল হক অপু

DENTALTIMESBD.com

Published

on

DentalTimesডাঃ এহসানুল হক অপু ফিনল্যান্ডের University of Oulu থেকে ওরাল প্যাথোলজিতে পিএইচডি করছেন।  সম্প্রতি তিনি BADI এর কংগ্রেসে যোগ দিতে দেশে এসেছিলেন।  ডেন্টাল টাইমসের সাথে এক সাক্ষাতকারে দেশের বাইরে ক্যারিয়ারের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেছেন।

ডেন্টাল টাইমস: ভাই কেমন আছেন?
ডাঃ এহসানুল হক অপু – এই তো বেশ ভালো।  তোমাদের কি খবর?

ডেন্টাল টাইমস: আমরাও ভালো আছি ভাই।  আপনি যদি আপনার একাডেমিক জীবন ও কর্মজীবন নিয়ে আমাদের সাথে শেয়ার করতেন।
ডাঃ এহসানুল হক অপু: আমি ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজ থেকে ২০০১ সালে এস এস সি, সেন্ট যোসেফ কলেজ থেকে ২০০৪ সালে এইচ এস সি পাশ করি।  এর পর আমি BDC-09 ব্যাচের সাথে বাংলাদেশ ডেন্টাল কলেজে ভর্তি হই। ফেব্রুয়ারি ২০১০ এ আমি বিডিএস পাশ করি।  ২০১৩ সালে ইংল্যান্ডের কুইন মেরী ইউনিভার্সিটি থেকে ওরাল প্যাথোলজিতে মাস্টার্স করি।  ২০১৪ থেকে ফিনল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অব ওলুতে ওরাল প্যাথোলজিতেই পিএইচডি করছি।  আমার স্ত্রী ও একই ইউনিভার্সিটিতে পাবলিক হেলথে পিএইচডি করছে।

ডেন্টাল টাইমস: আমরা জানি দেশে ডেন্টালের ব্যাসিক সাবজেক্ট গুলোতে ক্যারিয়ার গড়ার স্কোপ খুবই কম। ব্যাসিক সাবজেক্ট গুলোতে ক্যারিয়ার করতে আমাদের দেশের বাইরেই আসতে হয়।  দেশের বাইরে কোন কোন সাবজেক্টগুলোতে ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ বেশি।
ডাঃ এহসানুল হক অপু – ব্যাসিক সাবজেক্টগুলোর নাম বললে প্রথম দিকেই আসবে পাবলিক হেলথ, ওরাল প্যাথোলজি, ফরেনসিক ওডোন্টোলজি, বায়োকেমিস্ট্রির কথা। ডেন্টাল রেডিওলজিতে এখন খুব একটা নিতে চায় না। এছাড়াও গ্লোবাল পাবলিক হেলথ আমার কাছের দুইজন জুনিওর সুইডেনে এস আই স্কলারশিপপে মাস্টার্স করছে। এছাড়াও ডেন্টিস্টদের বায়োটেকনোলজিতে মাস্টার্স করার সুযোগ আছে সুইডেনে।

ডেন্টাল টাইমস: আপনি মাস্টার্স করার জন্য কেন ইউরোপকে বাছাই করলেন যেখানে প্রথাগতভাবে সবাই জাপানকে প্রথমে রাখে?
ডাঃ এহসানুল হক অপু – আসলে আমি শুরুতে জাপানের কথাই ভেবেছিলাম। কিন্তু আমাদের সময় ফুকুশিমা রিএক্টর দুর্ঘটনার কারনে স্টুডেন্ট নেয়া বন্ধ ছিল। এখনকার মতন মালয়েশিয়া কিংবা থাইল্যান্ডের মতন ট্রেন্ড ও ছিল না। এইজন্যই ইউরোপের দিকে ঝুকলাম।  সুইডেনের ২ বছরের মাস্টার্স তুলনায় ইংল্যান্ডের একবছরের মাস্টার্স আমার কাছে বেশি সুবিধাজনক মনে হল।

ডেন্টাল টাইমস: ব্যাসিক সাবজেক্টে ক্যারিয়ার করার জন্য একজন শিক্ষার্থীর কিভাবে প্লান করে আগানো উচিত?
ডাঃ এহসানুল হক অপু – আগে নিজেকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে আমি কিসে ক্যারিয়ার গড়তে চাই। মোটামুটি থার্ড প্রফের পরেই নেটে সার্চ করা শুরু করা উচিত। ভেবে দেখা উচিত আমি মাস্টার্স করেই থামবো নাকি মাস্টার্সের পর পিএইচডি ও করব। যে বিষয়ে ক্যারিয়ার গড়তে চাই সে বিষয়ে বেসিক স্কিল থাকা উচিত। যেমন ওরাল প্যাথোলজিতে এপ্লাই করার আগে আমি একটা প্যাথোলজিক্যাল ল্যাবে ৩ মাস ইন্টার্নশিপ করেছি। বায়োপসি, স্লাইডিং, গ্রাম স্টেইনিং এসব জিনিস শেখা ছিল আমার। আমার সিভিতে এটা উল্লেখ থাকায় ভার্সিটি কর্তৃপক্ষ বুঝতে পেরেছিল আমি ওরাল প্যাথোতেই ক্যারিয়ার গড়তেই চাই। তারা নিশ্চয় চাবে না কেও বেসিকে ডিগ্রী নিয়ে পরে দেশে এসে ক্লিনিক্যাল প্র‍্যাক্টিস করুক।নিজের প্যাশন তাদের বুঝাতে হবে। এছাড়াও আমি ফরেনসিক ওডোন্টোলজিতে পড়ার সুযোগ পেয়েছিলাম ইউনিভার্সিটি অব গ্লামারগনে। ফরেনসিকের ক্ষেত্রে বিভিন্ন বয়স নির্ণয় কোর্স হেল্প করতে পারে।

ডেন্টাল টাইমস: একজন স্টুডেন্ট নিজেকে কিভাবে প্রস্তুত করবে বাইরের কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদনের জন্য।?
ডাঃ এহসানুল হক অপু – প্রথমেই যে ফ্যাক্টর সামনে আসে তাহল ল্যাংগুয়েজ স্কিল।  IElTS স্কোর সব দেশে একরকম চায় না। কিন্তু ভালো স্কোর এডমিশনে অনেকটা আগায় দেয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন ফ্যাকাল্টির ডিন অফিস থেকে একটা চিঠি ইস্যু করে নেয়া যায় যে His/Her course was taught in English.এই চিঠি পরে খুবই কাজে দেয়। তারপর যেটা আসে সার্টিফিকেট এক্রিডেশন। এটা এপ্লাই করা ভার্সিটির রেকমেন্ড অনুযায়ী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার অফিস থেকে করে নিতে হবে। এই জন্য কিছু ফি নেয়া হয়। তারপর কপি নিয়ে জমা দিতে হবে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে, এরপর পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে।এই পুরো প্রসেস তাই ফ্রি। কিন্তু দালালরা টাকার বিনিময়ে করে দিতে চাবে। দালালদের এড়াই চলাই ভালো। তারা অনেকসময় ঠিক মতন এন্ট্রি করে না। তারপর মেডিসিন ফ্যাকাল্টির প্রধানের সুপারিশপত্র। সংশ্লিষ্ট বিষয়ের দুইজন প্রফেসরের রেকমেন্ড লেটার। সাথে সাথে স্কিল গুলোর সার্টিফিকেট। রিসার্চ মেথোডোলজি,এসপিএসএস,মাইক্রোসফট এক্সেল, পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন এসব বিষয়ে স্কিল থাকা জরুরী। পাবলিকেশন থাকলে ভালো হয়।

ডেন্টাল টাইমস: দেশের বাইরে যারা থাকেন তাদের নিয়ে অনেক দেশের কমিউনিটি থাকে।যেমন ভারতের ডেন্টাল সার্জনদের বেশ বড় একটা প্লাটফর্ম আছে বাংলাদেশীদের বেলায় কি এরকম কোন প্লাটফর্ম আছে বা তৈরী করার কোন পরিকল্পনা আছে আপনাদের।?
ডাঃ এহসানুল হক অপু- আমরা যারা বাংলাদেশ ডেন্টাল থেকে দেশের বাইরে তাদের একটা প্লাটফর্ম আছে। আমরা বাংলাদেশ ডেন্টাল কলেজে এই নিয়ে সেমিনার ও করেছি। আমাদের একটা স্কাইপে গ্রুপ ও মেইল আইডি আছে। স্কাইপে তে BDC.Graduate Careers এবং মেইল bdc.graduatecareers@gmail.com এ কেউ নক দিলে আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করি।এছাড়াও আমাদের ভবিষ্যতে দেশে ক্যারিয়ার গাইডলাইন সেমিনার করার ইচ্ছা আছে।

ডেন্টাল টাইমস: আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?
ডাঃ এহসানুল হক অপু – আমার ইচ্ছা আছে উত্তর আমেরিকায় পোস্ট ডক্টরালে ক্যান্সার মেডিসিন নিয়ে কাজ করার।

ডেন্টাল টাইমস; নতুন প্রজন্মের ডেন্টাল সার্জনদের জন্য আপনার কোন পরামর্শ আছে?
ডাঃ এহসানুল হক অপু – হ্যা। আমি তাদের বলব যারা বাইরে যেতে চান বসে না থেকে এখনই কাজে নেমে যেতে।যদি বাইরে মাস্টার্স সম্ভব না হয় দেশেই মাস্টার্স করে বাইরে পিএইচডি এর জন্য চেষ্টা করুন। দেশের বাইরে অনেক স্কোপ আছে। আমরা চাই ডেন্টিস্ট্রি দেশের বাইরেও ছড়িয়ে পড়ুক।

ডেন্টাল টাইমস: ডেন্টাল টাইমসের উদ্দেশ্যে যদি আপনি কিভাবে দেখেন?
ডাঃ এহসানুল হক অপু – ডেন্টাল টাইমসের কাজ অবশ্যই প্রশংসনীয়। বিশেষ করে দেশের ডেন্টিস্ট্রিতে কখন কি ঘটছে তা একবার চোখ বুলালেই জানা যাচ্ছে। তবে ডেন্টাল টাইমসের কাছে আমার বিশেষ আবেদন থাকবে নিয়মিত পত্রিকা বের করতে এবং সেমিনার আয়োজন করার। এতে সবার জন্যই উপকার হবে।

ডেন্টাল টাইমস: অনেক ধন্যবাদ ভাইয়া।  এতো ব্যাস্ততার মধ্যেও আমাদের সময় দেয়ার জন্য।
ডাঃ এহসানুল হক অপু – তোমাদেরও অনেক ধন্যবাদ। 

Continue Reading

Uncategorized

যশোর : ২২ চিকিৎসক-নার্সসহ ২৮ জন কোয়ারেন্টাইনে

DENTALTIMESBD.com

Published

on

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত দুই রোগীর সংস্পর্শে আসায় যশোর জেনারেল হাসপাতালের ১১ চিকিৎসক, ১১ নার্স মোট ২৮ জন স্বাস্থ্যকর্মীকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। বুধবার হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের জারি করা অফিস আদেশে এই কথা জানানো হয়।

বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দিলীপ কুমার রায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো এসব ডাক্তার ও নার্স করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়া রোগীদের কনটাক্টে এসেছিলেন। হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করে পর্যায়ক্রমে এই হাসপাতালের সবার নমুনা পরীক্ষা করতে বলা হয়েছে।

ডা. দিলীপ কুমার রায় বলেন, করোনা আক্রান্ত দুই রোগীর সংস্পর্শে যেসব ডাক্তার, নার্স ও কর্মচারী এসেছিলেন তাদের শনাক্ত করে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। ১১ জন ডাক্তার ও ১১ জন নার্স ছাড়াও পরিচ্ছন্নতাকর্মী, ওয়ার্ড বয় ও আয়া মিলিয়ে মোট ২৮ জনকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। কোয়ারেন্টাইনের মেয়াদ হবে ১৪ দিন। এই সময়কালে তাদের সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এমন পরিস্থিতিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসেবে করোনারি কেয়ার ইউনিট ও মেডিসিন ওয়ার্ড লকডাউন করে দেন। গুরুত্বপূর্ণ ইউনিট দুটি জীবাণুমুক্ত করার পদক্ষেপও নেওয়া হয়। ওই দুই স্থানে চিকিৎসাধীন রোগীদের স্থানান্তর করা হয় অন্য ওয়ার্ডে।

গত কয়েকদিনে শনাক্ত হওয়া করোনা পজেটিভদের বেশ কয়েকজনকে যশোর টিবি হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। যারা ওই হাসপাতালে যেতে অনাগ্রহ প্রকাশ করেছেন, তাদের নিজ নিজ বাড়িতে চিকিৎসাধীন রাখা হয়েছে।

যশোর টিবি হাসপাতালকে অস্থায়ী করোনা হাসপাতাল হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এখানে করোনাভাইরাস আক্রান্তদের সেবার কাজে নিয়োজিতরা পাশেই নাজির শঙ্করপুরে অবস্থিত শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের ডরমেটরিতে অবস্থান করছেন।

Continue Reading

Uncategorized

যে চারটি বেসরকারি হাসপাতালে হবে করোনাভাইরাস পরীক্ষা

DENTALTIMESBD.com

Published

on

বেসরকারি হাসপাতালে হবে করোনাভাইরাস পরীক্ষা

দেশে কোভিড-১৯ এর প্রকোপ বাড়তে থাকায় পরীক্ষার আওতা বাড়ানোর জন্য প্রথমবারের মত চারটি বেসরকারি হাসপাতালকে করোনাভাইরাস পরীক্ষা এবং চিকিৎসার অনুমতি দিয়েছে সরকার।

এর মধ্যে ঢাকার এভারকেয়ার হাসপাতাল (সাবেক অ্যাপোলা), স্কয়ার হাসপাতাল ও ইউনাইটেড হাসপাতাল শুধু তাদের ভর্তি রোগীদের নমুনা পরীক্ষা করবে।

আর নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের ইউএস-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতাল বাইরের রোগীদের নমুনাও পরীক্ষা করতে পারবে।

বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

তিনি বলেন, “তারা যে নমুনা পরীক্ষা করবেন আমরা তা আগামীকাল থেকে অথবা যখন তারা কাজ শুরু করবেন তখন থেকে হিসাবে যুক্ত করব।”

তিনটি হাসপাতালকে বাইরের রোগীর নমুনা পরীক্ষার অনুমতি না দেওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করে নাসিমা সুলতানা বলেন, “অনেক ক্ষেত্রে ফলোআপে সমস্যা হতে পারে, সে কারণে তাদের এখনও তাদের আউটডোর পেশেন্টের নমুনা পরীক্ষার অনুমতি দেওয়া হয়নি।”

এই চারটি বেসরকারি হাসপাতাল মিলিয়ে দেশে সব মিলিয়ে এখন ২৯টি মেডিকেল প্রতিষ্ঠানে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার ব্যবস্থা হল।

বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশে রেকর্ড ৬৪১ জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ায় আক্রান্তের মোট সংখ্যা বেড়ে ৭১০৩ জন হয়েছে। এই সময়ে আরও আটজনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৬৩ জন হয়েছে।

Continue Reading

Uncategorized

২৪ ঘণ্টায় আরও ৮ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ৬৪১

DENTALTIMESBD.com

Published

on

অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা

দেশে মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও আটজন মারা গেছেন। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মোট ১৬৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হিসেবে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন আরও ৬৪১ জন। ফলে দেশে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা সাত হাজার ১০৩ জন।

বুধবার (২৯ এপ্রিল) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়। অনলাইনে বুলেটিন উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

তিনি জানান, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও চার হাজার ৯৬৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। সব মিলিয়ে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৫৯ হাজার ৭০১টি। নতুন যাদের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে, তাদের মধ্যে আরও ৬৪১ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। ফলে মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন সাত হাজার ১০৩ জন। আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে মারা গেছেন আরও আটজন। ফলে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬৩ জনে। এছাড়া সুস্থ হয়েছেন আরও ১১ জন। ফলে মোট সুস্থ হয়েছেন ১৫০ জন।

যারা নতুন করে মারা গেছেন, তাদের মধ্যে ছয়জন পুরুষ এবং দুজন নারী। ছয়জন ঢাকার বাসিন্দা এবং দুজন ঢাকার বাইরের। বয়সের দিক থেকে চারজন ষাটোর্ধ্ব, দুজন পঞ্চাশোর্ধ্ব এবং দুজন ত্রিশোর্ধ্ব।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে সবাইকে ঘরে থাকার এবং স্বাস্থ্য অধিদফতর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ-নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ জানানো হয় বুলেটিনে।

প্রায় চার মাস আগে চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস এখন গোটা বিশ্বে তাণ্ডব চালাচ্ছে। চীন পরিস্থিতি অনেকটাই সামাল দিয়ে উঠলেও এখন মারাত্মকভাবে ভুগছে ইউরোপ-আমেরিকা-এশিয়াসহ বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চল। এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের প্রায় সাড়ে ৩১ লাখ। মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে দুই লাখ ১৮ হাজার। তবে নয় লাখ ৬১ হাজারের বেশি রোগী ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন।

গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর প্রথম দিকে কয়েকজন করে নতুন আক্রান্ত রোগীর খবর মিললেও এখন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে এ সংখ্যা। বাড়ছে মৃত্যুও।

প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার। নিয়েছে আরও নানা পদক্ষেপ। যদিও এরই মধ্যে সীমিত পরিসরে ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকার কিছু পোশাক কারখানা সীমিত পরিসরে খুলতে শুরু করেছে। তবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা নিশ্চিত করা না গেলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকবে কি-না, তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

অন্যান্য

Continue Reading

জনপ্রিয়