Connect with us

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

দেশে রেকর্ড সংখ্যক ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত

Published

on

দেশের ডেঙ্গু পরিস্থিতি চলতি মাসে ক্রমেই খারাপের দিকে যাচ্ছে। প্রায় প্রতিদিনই নতুন নতুন রেকর্ড গড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ৩৮৯ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। তবে এ সময় কোনো মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি।

বুধবার (সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমারজেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের প্রতিবেদনে এ চিত্র পাওয়া গেছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে আজ বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে ৩৮৯ জন। যা এ বছরে এক দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত। তাদের মধ্যে ঢাকায় ২৬৪ জন ও বাইরে ১২৫ জন। যেখানে আগের দিন শনাক্ত হয়েছিল ৩৫৩ জন রোগী। তাদের মধ্যে ঢাকায় ২৩৮ জন এবং বাইরে ছিল ১১৫ জন।

বর্তমানে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১ হাজার ২৫১ জন ডেঙ্গু রোগী। তাদের মধ্যে রাজধানীর ৫০টি সরকারি-বেসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে ৯২৯ জন এবং বাইরে ৩২২ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, জুলাই মাসের ৩১ দিনে মোট রোগী শনাক্ত হয়েছিল ১ হাজার ৫৭১ জন। আর আগস্টের ৩১ দিনে মোট রোগী ৩ হাজার ৫৩১ জন শনাক্ত হয়। আর চলতি মাসের ১৪ দিনে শনাক্ত ও ভর্তি হয়েছে ৩ হাজার ৬৫৬ জন। চলতি মাসের ১৪ দিনে মোট ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। যা গত আগস্টের চেয়ে অনেক বেশি। জুনে মৃত্যু হয়েছিল একজনের, জুলাইতে ৯ জন মিলে ডেঙ্গুতে এ পর্যন্ত মোট ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে আজ ১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ৯ হাজার ৮৩৭ জন। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়ে ছাড়পত্র নিয়েছে ৮ হাজার ৫৪৭ জন। ঢাকায় ভর্তি হয়েছিল ৭ হাজার ৮০১ জন এবং ছাড়পত্র নিয়েছে ৬ হাজার ৮৫৫ জন। ঢাকার বাইরে মোট রোগী শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ৩৬ জন। তাদের মধ্যে ছাড়পত্র নিয়েছে ১ হাজার ৬৯২ জন।

আগস্ট-সেপ্টেম্বরে ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাব সর্বোচ্চ চূড়ায় উঠবে বলে কীটতত্ত্ববিদেরা সতর্ক করে আসছিলেন। যেখানে চলতি মাসে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ২৬১ জন রোগী শনাক্ত হচ্ছে।

Advertisement
Click to comment

ক্যারিয়ার

জনস্বাস্থ্য ডেন্টিস্ট্রি বিভাগে পদসৃজন -(নিপসম)

Published

on

জনস্বাস্থ্য ডেন্টিস্ট্রি বিভাগে পদসৃজনঃ

ডেন্টাল পাবলিক হেলথ বিডিএস কারিকুলামে অন্তর্ভূক্ত থাকলেও জাতীয় পর্যায়ে গবেষণা ও বিশেষজ্ঞ তৈরীর ক্ষেত্রে এই বিষয়টি বহুকালব্যাপী অবহেলিত অবস্থায় ছিল।

এর অবসান ঘটিয়ে ১৭ ই জুলাই ২০২২ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ একটি জিও(সরকারী আদেশ) প্রকাশ করে যেখানে “জনস্বাস্থ্য ডেন্টিস্ট্রি” বিভাগ এবং সেই বিভাগে “সহকারী অধ্যাপক” ও “প্রভাষক” এর পদসৃজন এর বিষয়টি উল্লেখ করা হয়।

এ বিষয়ে ঢাকা ডেন্টাল কলেজ এর অধ্যক্ষ ও বাংলাদেশ ডেন্টাল সোসাইটির মহাসচিব জনাব হুমায়ূন কবীর বুলবুল ডেন্টাল টাইমসকে জানান – “বাংলাদেশ ডেন্টাল সোসাইটির অংগীকার ও প্রতিশ্রুতি ছিল ডেন্টাল পাবলিক হেলথ বিষয়টিকে নিপসমে ডিপার্টমেন্ট হিসাবে প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে জাতীয় গবেষণায় অন্তর্ভূক্ত করা৷ এরই অংশ হিসেবে আমরা নিপসম এর সম্মানিত পরিচালক অধ্যাপক (ডাঃ) বায়েজীদ খুরশীদ রিয়াজের সঙ্গে বিষয়টি আলোচনা করে কোর্স কারিকুলামের প্রস্তাবনাও প্রদান করি৷ দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় অবশেষে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর ও বিভাগ (স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়), জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও অর্থ মন্ত্রণালয় এর সম্মতিতে জনস্বাস্থ্য ডেন্টিস্ট্রির পদসৃজন হয়েছে।

আমি মনে করি আমাদের ডেন্টাল সার্জনদের জন্যে বিষয়টি অত্যন্ত আনন্দের এবং গর্বের। আপাতত ডেন্টাল পাবলিক হেলথ ডিপার্টমেন্ট চালু হলেও ভবিষ্যতে প্রস্তাবিত নিপসম বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তবায়িত হলে ডেন্টাল পাবলিক হেলথ একটি অনুষদ হিসাবে প্রতিষ্ঠা পাবে বলে পরিচালক মহোদয় আমাদের আশাবাদ প্রদান করেছেনএবং তাতে খুলে যাবে ডেন্টাল প্রফেশনে নতুন সম্ভাবনার দুয়ার৷ “

উল্লেখ্য, নিপসমে বর্তমানে ৯ টি বিষয়ে মাস্টার্স ইন পাবলিক হেলথ কোর্সটি চলমান রয়েছে৷ যেগুলো হলো –
১) Health Service Management & Policy
২) Hospital Management
৩) Community Medicine
৪) Epidemiology
৫) Reproductive & Child Health
৬) Health Promotion & Health Education
৭) Reproductive & Child Health
৮) Occupational & Environmental health.
৯) Non-Communicable Disease

এছাড়াও অধ্যাপক ডাঃ হুমায়ূন কবীর বুলবুল ডেন্টাল টাইমসকে জানান, ঢাকা ডেন্টাল কলেজ সহ সরকারী মেডিকেল কলেজ ডেন্টাল ইউনিটসমূহেও ইতিপূর্বে আমরা ডেন্টাল পাবলিক হেলথ বিভাগের পদসৃজন করেছি।

Continue Reading

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

সিঙ্গাপুরে লাইফ সাপোর্টে সেব্রিনা ফ্লোরা

Published

on

গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে রয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (উন্নয়ন এবং পরিকল্পনা) অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। 

রোববার (২১ আগস্ট) অধিদপ্তরের একটি সূত্র ঢাকা পোস্টকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। এদিকে পরিবারের পক্ষ থেকে তার সুস্থতার জন্য সবার কাছে দোয়া চাওয়া হয়েছে। 

সূত্র জানিয়েছে, গত দুই দিন ধরে তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে। এর আগে তার এমআরসিপি করা হয়েছিল, তারপর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়। পরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়েছে। 

এদিকে অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরার সুস্থতা কামনায় রোববার বাদ জোহর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে এক মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। এতে তার সুস্থতা কামনায় দোয়া করা হয়েছে। 

মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা রোগতত্ত্ববিদ এবং জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ। তিনি রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) পরিচালক ছিলেন। 

Continue Reading

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

ঢাকায় ২৯ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি

Published

on

গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ঢাকাতে আরও ২৯ জন নতুন রোগী বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

শুক্রবার (১৭ জুন) স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে পাঠানো ডেঙ্গু বিষয়ক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ঢাকাতে ২৯ জন নতুন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। একই সময়ে ঢাকার বাইরে নতুন কোনো রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়নি।    

বর্তমানে সারাদেশে সর্বমোট ১০৪ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ১০১ জন ও ঢাকার বাইরে তিন জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।     

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ১৭ জুন পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা সর্বমোট ৬৯০ জন। একই সময়ে হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫৮৬ জন রোগী। চলতি বছরে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে এখনও কেউ মারা যায়নি।  

গত বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ছিল ২৮ হাজার ৪২৯ জন। একই সময়ে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২৮ হাজার ২৬৫ জন ও ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা যান ১০৫ জন।

Continue Reading

জাতীয়

আবেদনের হিড়িক স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে

Published

on

অবৈধ চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হওয়ার পরপরই হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নিবন্ধনের জন্য আবেদনের হিড়িক পড়েছে। এক সপ্তাহে দুই হাজারের বেশি প্রতিষ্ঠান নিবন্ধন ও নিবন্ধন নবায়নের জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে আবেদন করেছে। অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলছেন, অবৈধ সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ করার অভিযান অব্যাহত থাকবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল শাখার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২৬ মে থেকে ১ জুন—এই সাত দিনে ২ হাজার ১৩৬টি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে আবেদন করা হয়েছে। এর মধ্যে ৮৪৫টি আবেদন করা হয়েছে নতুন প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধনের জন্য। বাকি ১ হাজার ২৯১ টি আবেদন করা হয়েছে নিবন্ধন নবায়নের জন্য। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বছরের অন্যান্য সময়ে সপ্তাহে ৫০ থেকে সর্বোচ্চ ১০০টি আবেদন জমা পড়ত। এখন দৈনিক ৩০০-এর বেশি আবেদন জমা পড়ছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক আহমেদুল কবীর গণমধ্যমকে বলেন, অবৈধ প্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্তের পরপরই নতুন নিবন্ধন বা নিবন্ধন নবায়নের আবেদনের সংখ্যা রাতারাতি বেড়ে গেছে। এটা ভালো লক্ষণ। নিবন্ধন না থাকা সব প্রতিষ্ঠানই অবৈধ। অবৈধ প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসা হতে দেওয়া যায় না।

২৫ মে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে অনুষ্ঠিত সভায় সারা দেশে নিবন্ধনহীন হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর পরদিন থেকে নিবন্ধনহীন প্রতিষ্ঠান বন্ধের অভিযান শুরু হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সারা দেশে ১ হাজার ৪৫৬টি অবৈধ হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

অধিদপ্তর সূত্র জানিয়েছে, পাঁচ ধরনের বেসরকারি প্রতিষ্ঠান নিবন্ধনের জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে আবেদন করে। এর মধ্যে আছে: হাসপাতাল বা ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ব্লাড ব্যাংক, ডেন্টাল ক্লিনিক ও মেডিকেল চেক-আপ সেন্টার। মেডিকেল চেক-আপ সেন্টার বিদেশগামী ব্যক্তিদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে।

বেসরকারি চিকিৎসাপ্রতিষ্ঠান নিবন্ধনের দায়িত্ব স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল শাখার। প্রতিষ্ঠানের মালিকপক্ষকে অনলাইনে আবেদনপত্র জমা দিতে হয়। হাসপাতাল বা ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ব্লাড ব্যাংক, ডেন্টাল ক্লিনিক ও মেডিকেল চেক-আপ—প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধনের জন্য আলাদা শর্ত। গতকাল পর্যন্ত ২ হাজার ৭১৩টি প্রতিষ্ঠানের আবেদন অনুমোদনের অপেক্ষায় (পেন্ডিং) ছিল। অর্থাৎ এসব প্রতিষ্ঠানের আবেদনে ত্রুটি ছিল। অন্যদিকে নতুন ২ হাজার ২৮টি প্রতিষ্ঠানের আবেদনপত্র ঠিকঠাক থাকলেও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে পরিদর্শন হয়নি বলে তারা নিবন্ধন পায়নি। অর্থাৎ প্রায় পাঁচ হাজার প্রতিষ্ঠান নিবন্ধনের অপেক্ষায় আছে। এ ব্যাপারে অধ্যাপক আহমেদুল কবীর বলেন, ‘যেসব প্রতিষ্ঠান যোগ্য বলে বিবেচিত হবে, তাদের খুব শিগগির নিবন্ধন দিয়ে দেওয়া হবে। আমরা এ ব্যাপারেও সমান গুরুত্ব দিচ্ছি।’

সর্বশেষ গতকাল পর্যন্ত নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ছিল ১০ হাজার ৯২২। এর মধ্যে ৭ হাজার ৪৩টি ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ৩ হাজার ৭১৭টি হাসপাতাল ও ক্লিনিক এবং ১৬২টি ব্লাড ব্যাংক।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল শাখার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তা বলেন, কিছু মালিক নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেই ক্লিনিক বা ডায়াগনস্টিক সেন্টার চালু করে দেন। নিবন্ধিত চিকিৎসক, প্রশিক্ষিত নার্স, ডিগ্রিধারী টেকনোলজিস্ট আছে কি না, স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে তা যাচাই করার আগেই চিকিৎসা শুরু করে এসব প্রতিষ্ঠান।

বাংলাদেশ প্রাইভেট হসপিটাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের নির্বাহী সদস্য ও ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চেয়ারম্যান প্রীতি চক্রবর্ত্তী গণমাধ্যমকে বলেন, ‘স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বর্তমান উদ্যোগকে আমরা ইতিবাচকভাবে নিয়েছি। এর ফলে জবাবদিহি নিশ্চিত হবে। লাভবান হবেন রোগীরা। তবে এ ধরনের অভিযানের সময় অনেক নিরীহ উদ্যোক্তা অযথা হয়রানির শিকার হন। সে ব্যাপারে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে সতর্ক থাকতে হবে।’

Continue Reading

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

আগামী ৭২ ঘণ্টার ভেতর অনিবন্ধিত হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক বন্ধের নির্দেশ

Published

on

আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে দেশের সকল অনিবন্ধিত বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আজ বুধবার (২৫ মে) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবির স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ), সিভিল সার্জন (সকল) ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাদেরকে এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এতে বলা হয়, আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে দেশের অনিবন্ধিত বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার সমূহ বন্ধ করতে হবে। অনিবন্ধিত বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার সমূহের বিরুদ্ধে এ কার্যক্রম চলমান থাকবে। এ কার্যক্রমে স্থানীয় প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সাথে সমন্বয় করতে হবে।

‘যে সকল প্রতিষ্ঠান নিবন্ধন গ্রহণ করেছে কিন্তু নবায়ন করেনি। তাদের নিবন্ধন নবায়নের জন্য একটি সময়সীমা প্রদান করতে হবে। নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে নবায়ন গ্রহণ না করলে সে সকল প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম বন্ধ করতে হবে।’

‘বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহে অপারেশন করার সময় অ্যানেস্থিসিয়া প্রদান ও ওটি এসিস্ট করার ক্ষেত্রে নিবন্ধিত ডাক্তার ছাড়া অন্যদের রাখা হলে সকল প্রতিষ্ঠান ও জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে লাইসেন্স বাতিলসহ কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে।’

যে সকল প্রতিষ্ঠান নতুন নিবন্ধনের আবেদন করেছে, তাদের লাইসেন্স প্রদানের কার্যক্রম দ্রুত শেষ করতে হবে। লাইসেন্স প্রাপ্তির আগে এ সকল প্রতিষ্ঠান কার্যক্রম চালাতে পারবে না’, বলা হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

Continue Reading
জাতীয়2 days ago

প্রেসক্রিপশন ছাড়া এন্টিবায়োটিক বিক্রি করলে ফার্মেসির লাইসেন্স বাতিল

ক্যারিয়ার3 days ago

জনস্বাস্থ্য ডেন্টিস্ট্রি বিভাগে পদসৃজন -(নিপসম)

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়6 days ago

অ্যান্টিবায়োটিকের মোড়ক হবে লাল, যথেচ্ছ ব্যবহার রোধে হচ্ছে আইন

জাতীয়1 week ago

দাউদকান্দিতে অবৈধ হাসপাতাল-ক্লিনিকের রমরমা বাণিজ্য

জাতীয়3 weeks ago

৭ ছাত্র নিরুদ্দেশ: চিকিৎসক শাকিরের সহযোগী ভিলার স্বীকারোক্তি

সিলেট বিভাগ3 weeks ago

চিকিৎসককে ছুরিকাঘাতের হুমকি দিয়ে ডেন্টাল চেম্বারে ছাত্রলীগ নেতার চাঁদাবাজি!

সংগঠন3 weeks ago

ডা: মোত্তাকিন আহমেদ স্মরণে বিএসপিডি’র দোয়া মাহফিল

সংগঠন3 weeks ago

চিকিৎসকদের জন্য লিডারশীপ এক্সেলেন্সি শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

কলাম3 weeks ago

স্বাস্থ্য খাতে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্ব

জাতীয়4 weeks ago

সংস্থা বলছে জঙ্গি – পরিবারের দাবি ডাঃ শাকির নির্দোষ

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর4 weeks ago

দেশে রেকর্ড সংখ্যক ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত

জাতীয়4 weeks ago

প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন কার্যক্রম কেউ ঠেকাতে পারবে না – স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জাতীয়4 weeks ago

বিএসএমএমইউ সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

জাতীয়4 weeks ago

ডেন্টাল সার্জন অবসরে, কর্তৃপক্ষের সম্মতিতে চিকিৎসা দিচ্ছে টেকনিশিয়ান

জাতীয়4 weeks ago

সিআইডি পরিচয়ে ‘চিকিৎসক’ তুলে নেওয়ার অভিযোগ

জাতীয়1 month ago

ওষুধের দাম বাড়ায় বিপাকে সাধারণ মানুষ

পরামর্শ1 month ago

দাঁতের চিকিৎসার সময় যে তথ্যগুলো গোপন করবেন না!

জাতীয়1 month ago

হাসপাতালের ল্যাবে ইলিশ মাছ, সিলগালা করে দিলেন ম্যাজিস্ট্রেট

পড়ালেখা1 month ago

বাইরের শিক্ষার্থীদের নিয়মিত মাস্টার্সে সুযোগ দেওয়ার কথা ভাবছে ঢাবি

শিক্ষাঙ্গন1 month ago

রংপুর মেডিকেলের ‘অসুখ’ সারবে কে?

Advertisement

সম-সাময়িক

Subscribe for notification