Connect with us

Uncategorized

বিএসএমএমইউ বিশ্বসেরা তালিকায় অন্তর্ভূক্ত হয়েছে : উপাচার্য

DENTALTIMESBD.com

Published

on

DentalTimes

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় সমাবর্তনে স্বাগত বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার চলমান উন্নয়নের ধারার অন্যতম অবদান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা। বর্তমানে দেশের মানুষের চিকিৎসা ও উচ্চ মেডিক্যাল শিক্ষার ভরসাস্থল।

তিনি বলেন, জাতির পিতার নামে এ বিশ্ববিদ্যালয় বিশ্বসেরা তালিকায় অন্তর্ভূক্ত হয়েছে। স্পেনের সিমাগো এবং যুক্তরাষ্ট্রের স্কপাস এ দুটো বিশ্বখ্যাত জরিপ সংস্থা মান সম্মত চিকিৎসা এবং গবেষণার জন্য (অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে বাংলাদেশ পঞ্চম স্থান) দক্ষিণ এশিয়ার মেডিক্যাল প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দ্বিতীয় স্থানের মর্যাদা দিয়েছে। বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর র‌্যাকিং-এ গত তিন বছরে ৭২ থেকে ২৪-এ উন্নীত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমানে রয়েছে এ বিশ্ববিদ্যালয়সহ ৪২টি অধিভুক্ত প্রতিষ্ঠান। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চতর কোর্সের সংখ্যা ৯৫টি। এরমধ্যে রেসিডেন্সি ৬২টি, নন রেসিডেন্সী ৩০টি, বিএসসি নার্সিং ১টি এবং মাস্টার অফ সায়েন্স ইন নার্সিং ১টি এবং পিএইচডি ১টি।  বর্তমানে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতি বছর ২২৭৪ জন ছাত্রছাত্রী ভর্তি হয়।  এর মধ্যে রেসিডেন্সী শিক্ষার্থীর সংখ্যা হলো ১০৯৯ জন এবং নন রেসিডেন্সী ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা হলো ১১৭৫ জন।

তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সনে সরকারের দায়িত্ব গ্রহন করার পর ১৯৯৮ সনের ৩০ এপ্রিল এই মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করেছিলেন। প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক, চিকিৎসক, নার্স, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় আজকে এ বিশ্ববিদ্যালয়কে দেশের মানুষের আকাঙ্খার জায়গায় পৌছেছে।

তিনি বলেন, অত্যন্ত দুঃখ ভারাক্রান্ত চিত্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষকে এই আনন্দ মুখর দিনে একটি বেদনার সংবাদ পরিবেশন করতে হচ্ছে।  বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) এবং চর্ম ও যৌন রোগ বিভাগের অধ্যাপক ডা. এ এস এম জাকারিয়া গত ১৪ ফেব্রুয়ারি আমাদের ছেড়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন। তাঁর এ অকাল মৃত্যুতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামগ্রিক আয়োজন নিষ্প্র্রভ হয়ে গেছে।  তাঁর শোক সমাপ্ত পরিবারের প্রতি রইল গভীর সমবেদনা।  মহান সৃষ্টিকর্তা তাঁকে জান্নাতবাসী করুন।

মাননীয় উপাচার্য তাঁর বক্তব্যে জানান, সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী ১২১৬ জন উচ্চতর ডিগ্রী অর্জনকারী চিকিৎসক সমাবর্তনে অংশ নিয়ে তাঁদের সনদ গ্রহণ করবেন।  এরমধ্যে মেডিসিন অনুষদ থেকে ৩৪৪ জন, সার্জারি অনুষদ থেকে ৩৯৫ জন, বেসিক সায়েন্স ও প্যারাক্লিনিক্যাল সায়েন্স অনুষদে ২৪৩ জন, ডেন্টাল অনুষদে ৫১ জন, প্রিভেনটিভ এন্ড সোশ্যাল মেডিসিন অনুষদে ১৪১ জন উচ্চতর ডিগ্রী অর্জনকারী চিকিৎসক এবং নার্সিং অনুষদে ৪২ জন ডিগ্রিধারী নার্স সনদ গ্রহণ করবেন। ডিগ্রিধারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৬০৭ জন ছাত্র এবং ৬০৯ জন ছাত্রী রয়েছে।

২০১০ সাল থেকে এ পর্যন্ত রেসিডেন্সী প্রোগ্রামের অধীন ফেজ এ এবং ফেজ বি-তে ৪৯৭৯ জন ছাত্রছাত্রী ভর্তি হয়েছেন। ফেজ বি-তে পাশ করেছেন ৭৬৮ জন। নন রেসিডেন্সী প্রোগ্রামের অধীনে ভর্তি হয়েছেন ৮৬৯১ জন এবং পাশ করেছেন ৬৬৫১ জন। বর্তমানে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬২৫১ জন ছাত্রছাত্রী উচ্চশিক্ষায় অধ্যায়নরত আছেন। বর্তমানে এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চালু হয়েছে এমএসসি নার্সিং কোর্স। বাংলাদেশের ছাত্রদের বাইরেও প্রায় ৩০০ বিদেশী ছাত্র বিভিন্ন কোর্সে লেখাপড়া করছেন। প্রতিদিন বহির্বিভাগে প্রায় ৮০০০ রোগী চিকিৎসা গ্রহন করে সন্তুষ্টি নিয়ে বাড়ি ফিরছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে এখন বিভিন্ন ইউনিটসহ ৫২টি পূর্ণাঙ্গ বিভাগ। আরো সুশৃঙ্খল এবং ডিজিটাল করা হয়েছে আর্থিক ব্যবস্থাপনা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের হাসপাতালে এখন সমাজের সর্বস্তরের মানুষ ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করছেন। সাবেক রাষ্ট্রপতি, মাননীয় মন্ত্রীমহোদয়গণ, সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ে কর্মকর্তাবৃন্দ, সমাজের বিভিন্ন পর্যায়ের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ এবং তাঁদের পরিবারের সদস্যবৃন্দ এখানে প্রতিনিয়ত চিকিৎসা গ্রহন করছেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় এখন দেশের সকল মানুষের কাছে পরিগণিত হয়েছে চিকিৎসার নির্ভরযোগ্য আস্থাস্থল। রোগীদেরকে আরো উন্নত চিকিৎসা প্রদান করার লক্ষ্যে ইতোমধ্যেই চালু করা হয়েছে শিশু নিউরোলজি, শিশু কার্ডিওলজি, প্যালিয়েটিভ কেয়ার মেডিসিন, রেসপিরেটরি মেডিসিন, পেডোডনটিক্স বিভাগ এবং জেরিয়াট্রিক মেডিসিন ইউনিট। এছাড়া সার্জিক্যাল অনকোলজি, কলোরেক্টাল সার্জারি, হেপাটোবিলিয়ারী এন্ড প্যানক্রিয়েটিক সার্জারি, গাইনোকলোজিক্যাল অনকোলজি, রিপ্রোডাকটিভ এন্ডোক্রাইনোলজি এন্ড ইনফার্টিলিটি এবং ফিটোম্যাটার্নাল মেডিসিন নামে আরো ৬টি বিভাগ খোলার সিদ্ধান্ত হয়েছে। অনুমোদিত হয়েছে নতুন শিশুরোগ অনুষদ। মেডিক্যাল শিক্ষা ব্যবস্থায় গবেষণাকে জোরদার করার জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণা কেন্দ্র।

এদেশের প্রতিবন্ধী শিশুদের সঠিকভাবে বেড়ে ওঠাকে ত্বরান্বিত করার জন্য “ইন্সটিটিউট অব পেডিয়াট্রিক নিউরোডিজঅর্ডার এন্ড অটিজম (ইপনা)” নামে ইনস্টিটিউট স্থাপনের বিষয়টিও অনুমোদিত হয়েছে। ইপনা এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ইনস্টিটিউট হিসেবে পরিগনিত। চালু হয়েছে ২৪ ঘন্টা ল্যাবরেটরী সার্ভিস। মুক্তিযোদ্ধা এবং একুশে গ্রেনেড হামলায় আহত রোগীদের জন্য বিশেষ চিকিৎসা ব্যবস্থা করা হয়েছে। ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণকেন্দ্র। বেসরকারী রেসিডেন্টদের জন্য সরকার থেকে মাসিক ২০,০০০ টাকা সম্মানীর ব্যবস্থা করা হয়েছে। চালু করা হয়েছে সকল ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বিশেষ বাস সার্ভিস। শিক্ষা, সেবাসহ সকল পর্যায়ের মান উন্নয়ন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে চালু করা হয়েছে ইনস্টিটিউশনাল কোয়ালিটি এ্যাসুরেন্স সেল (আইকিউএসি)।

সকল শিক্ষক, কনসালট্যান্ট, কর্মকর্তা, নার্সদের জন্য আয়োজন করা হয়েছে প্রশাসনিক প্রশিক্ষণ কর্মশালা। গত তিন বছরে ১০৮ জন শিক্ষক এবং ৮০৭ জন ছাত্রকে গবেষণা অনুদান দেয়া হয়েছে। এছাড়া বিশ্বের বিভিন্ন বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সমঝোতা স্বারক চুক্তি করা হয়েছে। সম্পন্ন হয়েছে অনকোলজি বিল্ডিং, ছাত্রাবাস এবং কনভেনশন সেন্টারের নির্মাণ কাজ। অচিরেই সেগুলো উদ্বোধন করা হবে। কোরিয়ান সরকারের সহযোগীতায় অচিরেই নির্মিত হতে যাচ্ছে ১০০০ বেডের সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল। ইতোমধ্যে সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে ৫১২টি কিডনী প্রতিস্থাপন। পর্যায়ক্রমে চালু করা হচ্ছে আধুনিক হাসপাতাল ফার্মেসী। আগামী পঞ্চাশ বছরের পরিকল্পনা বিবেচনায় রেখে একটি মাস্টার প্লান নিয়ে চলছে সকল উন্নয়ন কার্যক্রম। অচিরেই যুক্ত হতে চলেছে ইমার্জেন্সী সার্ভিস, ওয়ান পয়েন্ট চেকআপ সেন্টার, ডে কেয়ার সেন্টার, বোনমেরো ট্রান্সপ্লান্টেশন, ই-টিকেটিং, সর্বক্ষেত্রে ডিজিটাল পদ্ধতি।

উল্লেখ্য, এরআগে ২০১১ প্রথম ও ২০১৫ সালে দ্বিতীয় সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

সূত্র: Daktarprotidin.com

Continue Reading

Uncategorized

যশোর : ২২ চিকিৎসক-নার্সসহ ২৮ জন কোয়ারেন্টাইনে

DENTALTIMESBD.com

Published

on

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত দুই রোগীর সংস্পর্শে আসায় যশোর জেনারেল হাসপাতালের ১১ চিকিৎসক, ১১ নার্স মোট ২৮ জন স্বাস্থ্যকর্মীকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। বুধবার হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের জারি করা অফিস আদেশে এই কথা জানানো হয়।

বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দিলীপ কুমার রায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো এসব ডাক্তার ও নার্স করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়া রোগীদের কনটাক্টে এসেছিলেন। হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করে পর্যায়ক্রমে এই হাসপাতালের সবার নমুনা পরীক্ষা করতে বলা হয়েছে।

ডা. দিলীপ কুমার রায় বলেন, করোনা আক্রান্ত দুই রোগীর সংস্পর্শে যেসব ডাক্তার, নার্স ও কর্মচারী এসেছিলেন তাদের শনাক্ত করে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। ১১ জন ডাক্তার ও ১১ জন নার্স ছাড়াও পরিচ্ছন্নতাকর্মী, ওয়ার্ড বয় ও আয়া মিলিয়ে মোট ২৮ জনকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। কোয়ারেন্টাইনের মেয়াদ হবে ১৪ দিন। এই সময়কালে তাদের সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এমন পরিস্থিতিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসেবে করোনারি কেয়ার ইউনিট ও মেডিসিন ওয়ার্ড লকডাউন করে দেন। গুরুত্বপূর্ণ ইউনিট দুটি জীবাণুমুক্ত করার পদক্ষেপও নেওয়া হয়। ওই দুই স্থানে চিকিৎসাধীন রোগীদের স্থানান্তর করা হয় অন্য ওয়ার্ডে।

গত কয়েকদিনে শনাক্ত হওয়া করোনা পজেটিভদের বেশ কয়েকজনকে যশোর টিবি হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। যারা ওই হাসপাতালে যেতে অনাগ্রহ প্রকাশ করেছেন, তাদের নিজ নিজ বাড়িতে চিকিৎসাধীন রাখা হয়েছে।

যশোর টিবি হাসপাতালকে অস্থায়ী করোনা হাসপাতাল হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এখানে করোনাভাইরাস আক্রান্তদের সেবার কাজে নিয়োজিতরা পাশেই নাজির শঙ্করপুরে অবস্থিত শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের ডরমেটরিতে অবস্থান করছেন।

Continue Reading

Uncategorized

যে চারটি বেসরকারি হাসপাতালে হবে করোনাভাইরাস পরীক্ষা

DENTALTIMESBD.com

Published

on

বেসরকারি হাসপাতালে হবে করোনাভাইরাস পরীক্ষা

দেশে কোভিড-১৯ এর প্রকোপ বাড়তে থাকায় পরীক্ষার আওতা বাড়ানোর জন্য প্রথমবারের মত চারটি বেসরকারি হাসপাতালকে করোনাভাইরাস পরীক্ষা এবং চিকিৎসার অনুমতি দিয়েছে সরকার।

এর মধ্যে ঢাকার এভারকেয়ার হাসপাতাল (সাবেক অ্যাপোলা), স্কয়ার হাসপাতাল ও ইউনাইটেড হাসপাতাল শুধু তাদের ভর্তি রোগীদের নমুনা পরীক্ষা করবে।

আর নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের ইউএস-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতাল বাইরের রোগীদের নমুনাও পরীক্ষা করতে পারবে।

বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

তিনি বলেন, “তারা যে নমুনা পরীক্ষা করবেন আমরা তা আগামীকাল থেকে অথবা যখন তারা কাজ শুরু করবেন তখন থেকে হিসাবে যুক্ত করব।”

তিনটি হাসপাতালকে বাইরের রোগীর নমুনা পরীক্ষার অনুমতি না দেওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করে নাসিমা সুলতানা বলেন, “অনেক ক্ষেত্রে ফলোআপে সমস্যা হতে পারে, সে কারণে তাদের এখনও তাদের আউটডোর পেশেন্টের নমুনা পরীক্ষার অনুমতি দেওয়া হয়নি।”

এই চারটি বেসরকারি হাসপাতাল মিলিয়ে দেশে সব মিলিয়ে এখন ২৯টি মেডিকেল প্রতিষ্ঠানে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার ব্যবস্থা হল।

বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশে রেকর্ড ৬৪১ জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ায় আক্রান্তের মোট সংখ্যা বেড়ে ৭১০৩ জন হয়েছে। এই সময়ে আরও আটজনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৬৩ জন হয়েছে।

Continue Reading

Uncategorized

২৪ ঘণ্টায় আরও ৮ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ৬৪১

DENTALTIMESBD.com

Published

on

অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা

দেশে মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও আটজন মারা গেছেন। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মোট ১৬৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হিসেবে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন আরও ৬৪১ জন। ফলে দেশে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা সাত হাজার ১০৩ জন।

বুধবার (২৯ এপ্রিল) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়। অনলাইনে বুলেটিন উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

তিনি জানান, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও চার হাজার ৯৬৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। সব মিলিয়ে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৫৯ হাজার ৭০১টি। নতুন যাদের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে, তাদের মধ্যে আরও ৬৪১ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। ফলে মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন সাত হাজার ১০৩ জন। আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে মারা গেছেন আরও আটজন। ফলে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬৩ জনে। এছাড়া সুস্থ হয়েছেন আরও ১১ জন। ফলে মোট সুস্থ হয়েছেন ১৫০ জন।

যারা নতুন করে মারা গেছেন, তাদের মধ্যে ছয়জন পুরুষ এবং দুজন নারী। ছয়জন ঢাকার বাসিন্দা এবং দুজন ঢাকার বাইরের। বয়সের দিক থেকে চারজন ষাটোর্ধ্ব, দুজন পঞ্চাশোর্ধ্ব এবং দুজন ত্রিশোর্ধ্ব।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে সবাইকে ঘরে থাকার এবং স্বাস্থ্য অধিদফতর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ-নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ জানানো হয় বুলেটিনে।

প্রায় চার মাস আগে চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস এখন গোটা বিশ্বে তাণ্ডব চালাচ্ছে। চীন পরিস্থিতি অনেকটাই সামাল দিয়ে উঠলেও এখন মারাত্মকভাবে ভুগছে ইউরোপ-আমেরিকা-এশিয়াসহ বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চল। এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের প্রায় সাড়ে ৩১ লাখ। মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে দুই লাখ ১৮ হাজার। তবে নয় লাখ ৬১ হাজারের বেশি রোগী ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন।

গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর প্রথম দিকে কয়েকজন করে নতুন আক্রান্ত রোগীর খবর মিললেও এখন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে এ সংখ্যা। বাড়ছে মৃত্যুও।

প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার। নিয়েছে আরও নানা পদক্ষেপ। যদিও এরই মধ্যে সীমিত পরিসরে ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকার কিছু পোশাক কারখানা সীমিত পরিসরে খুলতে শুরু করেছে। তবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা নিশ্চিত করা না গেলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকবে কি-না, তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

অন্যান্য

Continue Reading

জনপ্রিয়