Connect with us

জাতীয়

বৈশ্বিক তালিকায় দেশীয় প্রতিষ্ঠানের ৩ টি টিকা

DENTALTIMESBD.com

Published

on

DentalTimes

বাংলাদেশে চীনা টিকার পরীক্ষা কিছুটা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। পরীক্ষার কোনো খরচ বাংলাদেশ বহন করবে না। তবে দেশি প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেকের উদ্ভাবিত টিকা মানুষের ওপর পরীক্ষার (ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল) সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার টিকার তালিকায় গ্লোবের তিনটি টিকা অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।

গত সপ্তাহে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছিলেন, চীনের বেসরকারি সিনোভেক কোম্পানির টিকার পরীক্ষায় বাংলাদেশ যৌথ অর্থায়ন করবে না। সিনোভেকের সঙ্গে টিকার পরীক্ষার চুক্তিতে যৌথ অর্থায়নের বিষয় ছিল না।

আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র বাংলাদেশ (আইসিডিডিআরবি) চীনা টিকার পরীক্ষার প্রস্তুতি নিয়েছিল। গত মাসে চীনের কোম্পানিটি করোনাকালে অর্থসংকটের কথা তুলে বাংলাদেশের কাছে যৌথ অর্থায়নের প্রস্তাব দেয়।

আইসিডিডিআরবির সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, টিকার পরীক্ষা নিয়ে সিনোভেকের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা অব্যাহত আছে। পরীক্ষা বাতিল হয়ে গেছে এটা বলার সময় এখনো আসেনি। তা ছাড়া আরও দুটি প্রতিষ্ঠান তাদের টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগের জন্য মৌখিকভাবে আইসিডিডিআরবির সঙ্গে যোগাযোগ করেছে।

সিনোভেকের টিকার পরীক্ষা ব্রাজিল, ইন্দোনেশিয়া ও তুরস্কে চলছে। বাংলাদেশের সাতটি হাসপাতালের ৪ হাজার ২০০ স্বাস্থ্যকর্মীকে নিয়ে এই পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। আইসিডিডিআরবি এ ব্যাপারে সব ধরনের প্রস্তুতি প্রায় শেষ করে রেখেছে।

DentalTimes

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনার টিকা উদ্ভাবন ও অগ্রগতির তথ্য নিয়মিত হালনাগাদ করে। সংস্থার সর্বশেষ হিসাব বলছে, এ পর্যন্ত ৪২টি টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগ চলছে। তার মধ্যে চীনের সিনোভেকের টিকাও আছে। টিকাটির তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষা চলছে। এই পর্যায়ে টিকা মানুষের শরীরে প্রয়োগ করে তা নিরাপদ ও কার্যকর কি না, তা দেখা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের মডার্না বা যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ডের টিকারও এই পর্যায়ের পরীক্ষা চলছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তালিকায় বাংলাদেশের গ্লোব বায়োটেকের নাম আছে। যে ১৫৬টি টিকা পরীক্ষামূলক প্রয়োগের পূর্বাবস্থায় আছে, তার মধ্যে গ্লোবের তিনটি টিকা আছে। গ্লোব বায়োটেকের গবেষণা ও উন্নয়ন শাখার প্রধান আসিফ মাহমুদ বলেন, ‘প্রাণীর ওপর আমাদের টিকার সফল পরীক্ষা হয়েছে। আমরা এখন ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

গতকাল শনিবার গণমাধ্যমে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে গ্লোব কর্তৃপক্ষ বলেছে, তারা তিনটি টিকা উদ্ভাবন করেছে। এগুলো হচ্ছে: ডি৬১৪ ভেরিয়েন্ট এমআরএনএ, ডিএনএ প্লাজমিড ও এডিনোভাইরাস টাইপ-৫ ভেক্টর। গ্লোব কর্তৃপক্ষ বলেছে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার টিকার তালিকায় বিশ্বে একমাত্র গ্লোবের তিনটি টিকার নাম আছে, আর কোনো প্রতিষ্ঠানের তিনটি টিকা নেই।

এদিকে গত সপ্তাহে গ্লোবের সঙ্গে আইসিডিডিআরবির একসঙ্গে কাজ করার একটি সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। আইসিডিডিআরবির একজন শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা বলেছেন, ওই সমঝোতা স্মারকের আওতায় গ্লোবের টিকার পরীক্ষারও সুযোগ আছে।

DentalTimes

গ্লোব বায়োটেকের কর্মকর্তা আসিফ মাহমুদ প্রথম আলোকে বলেন, টিকা পরীক্ষার জন্য কন্ট্র্যাক্ট রিসার্চ অর্গানাইজেশন (সিআরও) হিসেবে কাজ করবে আইসিডিডিআরবি। আইসিডিডিআরবি গবেষণা প্রটোকল তৈরি করে বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ অর্গানাইজেশনে (বিএমআরসি) জমা দেবে। বিএমআরসি নীতিগত অনুমোদন দিলে পরীক্ষামূলক প্রয়োগে বাধা থাকবে না।’ তবে কবে নাগাদ, কত মানুষের ওপর এই পরীক্ষা হবে, তা কেউ বলতে পারছেন না।

এদিকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সেবা বিভাগের সচিব আবদুল মান্নান বলেছেন, আগামী ফেব্রুয়ারি নাগাদ যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড উদ্ভাবিত তিন কোটি টিকা পাওয়ার সম্ভাবনা আছে। প্রথম আলোর কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, গতকাল দুপুরে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা মিলনায়তনে জনপ্রতিনিধি ও সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব যুক্তরাজ্য থেকে টিকা আসার সম্ভাবনার কথা বলেন।

উদ্ভাবন প্রতিযোগিতায় যে টিকাগুলো এগিয়ে আছে অক্সফোর্ড তাদের মধ্যে অন্যতম। একাধিক ক্ষেত্রে দেখা গেছে, পরীক্ষায় অংশ নেওয়া ব্যক্তিদের শারীরিক সমস্যা তৈরি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পরীক্ষা স্থগিত করা হচ্ছে। তবে কোন টিকা আগে সফল ও কার্যকর বলে প্রমাণিত হবে, তা নিশ্চিত করে কেউ বলতে পারছেন না। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে একাধিকবার বলা হয়েছে, টিকা পাওয়ার জন্য সরকার বিভিন্ন দেশ ও প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে।

চীনা টিকার পরীক্ষা অনিশ্চিত। গ্লোবের টিকার পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছে আইসিডিডিআরবি।

জাতীয়

ভুয়া ডেন্টিস্ট : জামাই প্রেসক্রিপশন লেখে, শ্বশুর করে স্বাক্ষর

নিজস্ব প্রতিনিধি

Published

on

ভুয়া ডেন্টিস্ট

শ্বশুর নূর হোসেন তৃতীয় শ্রেণি পাস, আর জামাতা জাহিদুল ইসলাম পড়েছেন দশম শ্রেণি পর্যন্ত। কিন্তু তাতে কী! যেন দেখার কেউ নেই। তৃতীয় ও দশম শ্রেণি পড়া শ্বশুর-জামাই মিলে রাজধানীর খিলগাঁও তিলপাপাড়া এলাকায় গড়ে তুলেছেন ‘পঞ্চগড় ডেন্টাল কেয়ার’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান। যেখানে জামাই ও শ্বশুর বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক পরিচয়ে দীর্ঘদিন ধরে সাধারণ রোগীদের দাঁতের চিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন।

শেষ রক্ষা হয়নি, পুলিশের এলিট ফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) বিশেষ অভিযানে ধরা পড়েছে তাদের এ অভিনব প্রতারণা।

পঞ্চগড় ডেন্টাল কেয়ার’ পরিচালনার আড়ালে অন্য চিকিৎসকের রেজিস্ট্রেশন নম্বর ব্যবহার করা প্রেসক্রিপশন প্যাডে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক হিসেবে রোগী দেখে আসছিলেন তারা।

ভুক্তভোগী রোগীদের করা অভিযোগের ভিত্তিতে সোমবার (১৯ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর খিলগাঁওয়ের তিলপাড়ার ওই ডেন্টাল কেয়ারে অভিযান পরিচালনা করে র‍্যাব-৩।

অভিযান শেষে শ্বশুর নূর হোসেনকে দুই বছরের কারাদণ্ড এবং জামাতা জাহিদুল ইসলামকে এক বছরের কারাদণ্ড দেন র‍্যাব পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত। সেখানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন র‍্যাব-৩ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু।

অভিযান শেষে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু ডেন্টাল টাইমসকে বলেন, অভিযানে দেখা যায় অন্য ডাক্তারের রেজিস্ট্রেশন নম্বর ব্যবহার করে ডাক্তার অপারেশনসহ দাঁতের ট্রিটমেন্ট দিচ্ছেন নূর হোসেন ও জাহিদুল ইসলাম।

DentalTimes

তিনি বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে ভুয়া চিকিৎসক নূর হোসেন ওষুধের নামও ঠিকমতো উচ্চারণ করতে পারছিলেন না। তখন সন্দেহবশত জানতে চাইলে মো. নূর হোসেন ভ্রাম্যমাণ আদালতকে জানান, তিনি তৃতীয় শ্রেণি পাস। সম্পর্কে তিনি অপর ভুয়া চিকিৎসক জাহিদুল ইসলামের শ্বশুর। জামাতা জাহিদুল আগে পাথর কোম্পানিতে চাকরি করতো, সেটা ছেড়ে শ্বশুরের সঙ্গে ডেন্টাল ক্লিনিকে ভুয়া চিকিৎসা দেয়া শুরু করেন।

জিহান কবির নামের এক চিকিৎসকের প্যাডে তারা স্বাক্ষর করে চিকিৎসাপত্র দিয়ে আসছিলেন। জামাই জাহিদুল ওষুধের নাম লিখতেন আর শ্বশুর নূর হোসেন শুধু করতেন স্বাক্ষর। দীর্ঘদিন ধরে তারা এই জালিয়াতির মাধ্যমে ভুয়া চিকিৎসা দিয়ে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করে আসছিলেন।

অভিযানকালে বেশ কয়েকজন ভুক্তভোগী সেখানে উপস্থিত ছিলেন। তারা জানান, দালালদের মাধ্যমে তারা জেনেছেন, ওই ডেন্টাল কেয়ারে অভিজ্ঞ চিকিৎসক বসেন। অনেকে চিকিৎসাপত্রও নিয়েছেন। কিন্তু তারা এটা ঘুণাক্ষরেও বুঝতে পারেননি মাত্র তৃতীয় ও দশম শ্রেণিতে পড়া দুজন ভুয়া চিকিৎসক হিসেবে এতদিন চিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন!

ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু বলেন, নূর হোসেন দীর্ঘদিন ধরে এ প্রতারণার সঙ্গে জড়িত। তিনি আগে চিকিৎসকদের অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে কাজ করতেন। মাঝে মাঝে তিনি চিকিৎসকের অনুপস্থিতিতে চিকিৎসাপত্রও দিতেন! বছরখানেক আগে তিনি নিজেই বেশি লাভের আশায় এই ‘পঞ্চগড় ডেন্টাল কেয়ার’ নামক প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলেন। জামাই-শ্বশুর মিলে চিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন।

শ্বশুর নূর হোসেনকে দুই বছরের কারাদণ্ড এবং জামাতা জাহিদুল ইসলামকে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। পঞ্চগড় ডেন্টাল কেয়ার নামক প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করে দেয়া হয়েছে।

Continue Reading

করোনা পরিস্থিতি

দেশে করোনায় মৃত্যু, সংক্রমণ শনাক্তের হার বেড়েছে

DENTALTIMESBD.com

Published

on

DentalTimes

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় (আজ সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) করোনাভাইরাসে সংক্রমিত আরও ১ হাজার ৬৩৭ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ সময়ে করোনায় আক্রান্ত আরও ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

দেশে এখন পর্যন্ত নিশ্চিত করোনা সংক্রমিত ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৯০ হাজার ২০৬। এর মধ্যে ৫ হাজার ৬৮১ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর সুস্থ হয়েছে ৩ লাখ ৫ হাজার ৫৯৯ জন।

আজ সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়। গতকালের তুলনায় আজ দেশে নতুন রোগী, মৃত্যু, সংক্রমণ শনাক্তের হার সবই বেড়েছে।

গতকাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ২৪ ঘণ্টায় ১৪ জনের মৃত্যুর তথ্য জানানো হয়েছিল। রোগী শনাক্ত হয়েছিল এক হাজার ২৭৪ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১৫ হাজার ১৪৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার সংখ্যা বিবেচনায় রোগী শনাক্তের হার ১০ দশমিক ৮১ শতাংশ। আগের দিন এই হার ছিল ১০ দশমিক ৭৪ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে পুরুষ ১৪ জন ও নারী ৭জন। ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে হাসপাতালে আর একজনের মৃত্যু হয়েছে বাড়িতে।

দেশে প্রথম করোনা সংক্রমিত রোগী শনাক্তের ঘোষণা আসে চলতি বছরের ৮ মার্চ। প্রথম মৃত্যুর তথ্য জানানো হয় ১৮ মার্চ।

দেশে এখন পর্যন্ত সংক্রমণ বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৪৬ শতাংশ।

জনস্বাস্থ্যবিদেরা বলছেন, দেশের করোনা পরিস্থিতি এখনো নিয়ন্ত্রণে আসেনি। এর মধ্যে সরকার আশঙ্কা করছে, শীতে আবার সংক্রমণ বেড়ে যেতে পারে।

জনস্বাস্থ্যবিদেরা বলছেন, টিকা আসার আগপর্যন্ত নতুন এই ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধের মূল উপায় হলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা। মাস্ক পরা, কিছু সময় পরপর সাবান-পানি দিয়ে হাত ধোয়া, জনসমাগম এড়িয়ে চলা এবং সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা। কিন্তু এই স্বাস্থ্যবিধিগুলো মেনে চলার ক্ষেত্রে ঢিলেঢালা ভাব দেখা যাচ্ছে। এতে সংক্রমণ আবার বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা আছে।

Continue Reading

জাতীয়

তিন দফা দাবিতে বিএমডিসির সামনে মেডিকেল ও ডেন্টাল শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিনিধি

Published

on

DentalTimes

তিন দফা দাবীতে বিএমডিসি কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করছে মেডিকেল ও ডেন্টাল শিক্ষার্থীরা। সারাদেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ ও ডেন্টালের শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়।

সেশনজট মুক্ত শিক্ষাবর্ষ এবং করোনায় ১ম, ২য়,৩য় পেশাগত পরীক্ষা বাতিল করে অটোপ্রমোশনের দাবিতে এই মানববন্ধন করেছে শিক্ষার্থীরা। সকাল ১০ টায় এই মানববন্ধন শুরু হয়৷

তারা মানববন্ধনে তিন দফা দাবি উপস্থাপন করে।
১. করোনা মহামারিতে প্রফ নয় প্রফের বিকল্প চাই
২. অনতিবিলম্বে সেশনজট দূরীকরণের পরবর্তী ফেজের অনলাইন ক্লাস শুরুর নির্দেশ দেওয়া হোক
৩. পরীক্ষা ও ক্লাস সংক্রান্ত সকল আদেশের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে মেডিকেল ও ডেন্টাল শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যঝুঁকির কথা বিবেচনা করতে হবে।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা জানায়, “এমবিবিএস/বিডিএস শিক্ষাব্যাবস্থা একটি দীর্ঘমেয়াদী কোর্স।একজন শিক্ষার্থীর ছয় বছর লেগে যায় এমবিবিএস সম্পন্ন করতে। এখন কোভিড-১৯ এর জন্য আমরা আরো পিছিয়ে পরেছি। ইতিমধ্যে ১ম, ২য়, ৩য় পেশাগত পরীক্ষার শিক্ষার্থীরা মে-২০২০ এর পরীক্ষা মহামারী করোনার কারণে সময় মত অনুষ্ঠিত না হওয়ায় ৮ মাস পিছিয়ে গিয়েছি এবং যার ফলে আমরা ধেয়ে চলেছি এক ভয়াবহ সেশনজটের দিকে।”

তারা আরো জানান, “শিক্ষার্থীদের অনিশ্চিত ভবিষ্যতের কথা ভেবে জে এস সি এবং এইচ এস সি এর মত বিশাল পাব্লিক পরীক্ষাগুলোর পরীক্ষার্থীদের দেওয়া হচ্ছে অটোপ্রমোশন। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতেও সেশনজট এড়াতে অনলাইন ক্লাসের মাধ্যমে পরবর্তী সেমিস্টারের ক্লাস শুরু করা হচ্ছে। যেখানে শীতকালীন করোনার সম্ভাব্য ভয়াবহ পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে সব জায়গায় শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য এবং শিক্ষাজীবনের কথা ভেবে আমাদের দাবি মেনে দেওয়া জন্য অনুরোধ করা হলো।”

Continue Reading

জনপ্রিয়