Connect with us

আন্তর্জাতিক

মিয়ানমারে ১৪ চিকিৎসাকর্মী গ্রেপ্তার

Published

on

মিয়ানমারের ১৪ জন চিকিৎসাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে দেশটির জান্তা সরকার। তাঁদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী সংগঠনের সদস্য, এমন রোগীদের চিকিৎসা দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে। ক্ষমতাসীনদের সমর্থিত একটি সংবাদমাধ্যমে গত বুধবার এমন তথ্য জানানো হয়।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত সোমবার মিয়ানমারের সেনাবাহিনী দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় কায়া রাজ্যের লইকাও এলাকার একটি গির্জায় অভিযান চালিয়ে ওই চিকিৎসাকর্মীদের গ্রেপ্তার করে। এ সময় তাঁরা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৪৮ জন রোগীকে চিকিৎসা দিচ্ছিলেন।বিজ্ঞাপন

জান্তা-সমর্থিত পত্রিকা গ্লোবাল নিউ লাইটের প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, সন্ত্রাসী সংগঠনের আহত সদস্য ও অসুস্থ ব্যক্তিদের অনানুষ্ঠানিকভাবে চিকিৎসাসেবা দেওয়ার সময়ে ওই চিকিৎসাকর্মীদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

তবে সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে কোনো সংগঠনের নাম স্পষ্ট করে বলা হয়নি। শুধু প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই ১৮ চিকিৎসাকর্মীকে সুনির্দিষ্ট আইন অনুযায়ী বিচারের আওতায় আনা হবে।বিজ্ঞাপন

গত ১ ফেব্রুয়ারি সু চির সরকারকে সরিয়ে জান্তা ক্ষমতা দখল করার পর থেকে মিয়ানমারের স্বাস্থ্যসেবা ভেঙে পড়েছে। নির্বাচিত সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতা দখলের প্রতিবাদে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা বন্ধ করে দেন চিকিৎসাকর্মীরা। এমনকি তাঁরা জান্তাবিরোধী আন্দোলনেও অংশ নেন।

মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলছে, মিয়ানমারের স্বাস্থ্যকর্মীরা নিরাপত্তা বাহিনীর নিশানায় পরিণত হয়েছেন। যদিও সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে চিকিৎসকদের কাজে ফিরতে অনুরোধ করা হয়েছে।

গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত মিয়ানমারে ১ হাজার ৩০০ সাধারণ নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। এই সময়ে গ্রেপ্তার হয়েছেন ১০ হাজারের বেশি নাগরিক। অ্যাসিস্ট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনারস (এএপিপি) নামের একটি সংস্থা এ তথ্য জানায়।

জাতিসংঘও এএপিপির এই পরিসংখ্যানকে উদ্ধৃত করেছে। তবে মিয়ানমারের জান্তা সরকার এই প্রতিবেদনকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে দাবি করেছে। উল্টো গত সপ্তাহে জান্তা সরকারের এক মুখপাত্র দাবি করেছেন, চলতি বছরের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত সংঘাতে ২০০ সেনাকে হত্যা করা হয়েছে।

Advertisement
Click to comment

আন্তর্জাতিক

ডেন্টাল রেকর্ডের মাধ্যমে নিখোঁজ ব্রিটিশ সাংবাদিক শনাক্ত

Published

on

ব্রাজিলের আমাজন রেইনফরেস্টে নিখোঁজ ব্রিটিশ সাংবাদিকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। খবর বিবিসির।

ব্রাজিলের পুলিশ জানিয়েছে, রেইন ফরেস্টের প্রত্যন্ত অঞ্চলে দুটি মরদেহ পাওয়া গেছে। এর একটি যুক্তরাজ্যের সাংবাদিক ডম ফিলিপসের। ডেন্টাল রেকর্ডের মাধ্যমে মরদেহের পরিচয় নিশ্চিত করা হয়েছে।

অন্য মরদেহটি আদিবাসী বিশেষজ্ঞ ব্রুনো পেরেইরার বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে সেটির পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে।

এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুইজনকে আটক করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার এক বার্তায় ফিলিপের পরিবার জানায়, যারা ডন ফিলিপকে খুঁজে বের করার চেষ্টায় অংশগ্রহণ করেছিলেন, বিশেষ করে সেসব আদিবাসী গোষ্ঠী যারা আক্রমণের আলামত জোগাড় করতে প্রাণপণ চেষ্টা করেছেন তাদের সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

এর আগে পৃথিবীর বৃহত্তম বনাঞ্চল আমাজনে ঢুকে নিখোঁজ হয়েছিলেন ৫৭ বছর বয়সী যুক্তরাজ্যের সাংবাদিক ডম ফিলিপস।

সবশেষ ৩ জুন ব্রাজিলের আমাজন রাজ্যের জাভরি এলাকায় জঙ্গলে তাকে ও তার সঙ্গী আদিবাসী বিশেষজ্ঞ ব্রুনো পেরিইরাকে দেখা গিয়েছিল। এ দুজনই আদিবাসী গ্রুপের পক্ষ থেকে হুমকি পেয়েছিলেন বলে জানিয়েছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ।

ডম ফিলিপস গার্ডিয়ান পত্রিকার কন্ট্রিবিউটর হিসেবে কাজ করতেন। একটি বইয়ের জন্য গবেষণার কাজে তিনি অ্যামাজনে গিয়েছিলেন।

Continue Reading

আন্তর্জাতিক

উহানবাসীর রক্তের নমুনা পরীক্ষা করবে চীন

Published

on

চীনের উহান থেকে মানবদেহে প্রথম ছড়িয়েছিল করোনাভাইরাস। তবে এটির উৎপত্তি সম্পর্কে এখনো স্পষ্ট করে জানা যায়নি। করোনার উৎস সম্পর্কে জানতে উহানের লাখো মানুষের রক্তের নমুনা পরীক্ষার উদ্যোগ নিয়েছে চীন। দেশটির সরকারি সূত্রের বরাতে বুধবার এ বিষয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন।

২০১৯ সালের শেষ ভাগে করোনা ছড়িয়ে পড়ার শুরুর দিকে সংগ্রহ করা দুই লাখের বেশি রক্তের নমুনা নতুন করে পরীক্ষার পরিকল্পনা করেছে চীন। এসব নমুনা উহান ব্লাড সেন্টারে সংরক্ষণ করা রয়েছে। এ পরীক্ষা করোনার উৎস এবং কখন ও কীভাবে এটি মানবদেহে ছড়িয়েছে, সেসব নিয়ে আরও সুনির্দিষ্ট ও স্বচ্ছ তথ্য জানাতে পারবে।

বিশ্বজুড়ে করোনা ছড়ানোর জন্য চীনকে দায়ী করে পশ্চিমা দেশগুলো। তবে চীন বরাবর এ অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছে। বিষয়টি নিয়ে গত ফেব্রুয়ারিতে উহানে গিয়ে অনুসন্ধান চালিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) তদন্তকারীরা। উহানবাসীর রক্তের নমুনা পরীক্ষার মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্য করোনার উৎস ও ছড়িয়ে পড়ার বিষয়ে স্বচ্ছতা আনবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

চীনা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সংরক্ষণ করা রক্তের নমুনা দুই বছর কার্যকর থাকবে। এ কারণে যথাযথ তথ্য পেতে আগামী নভেম্বরের মধ্যে রক্ত পরীক্ষার কাজ শেষ করতে হবে। চীনের ন্যাশনাল হেলথ কমিশনের একজন কর্মকর্তা সিএনএনকে বলেছেন, রক্তের নমুনা পরীক্ষার প্রস্তুতি প্রক্রিয়াধীন। নমুনার কার্যকারিতা নষ্ট হওয়ার আগেই পরীক্ষা করা হবে।

এ বিষয়ে নিউইয়র্কভিত্তিক কাউন্সিল অন ফরেন রিলেশন্সের বৈশ্বিক স্বাস্থ্যবিষয়ক জ্যেষ্ঠ ফেলো ইয়ানঝং হুয়াং বলেন, ‘এর মধ্য দিয়ে করোনার উৎস ও ছড়িয়ে পড়ার সময় সম্পর্কে জানা যাবে।’

তবে এ প্রক্রিয়ার সঙ্গে আন্তর্জাতিক পর্যায়ের বিশেষজ্ঞদের সম্পৃক্ত করার দাবি জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির মহামারিবিদ্যা বিষয়ের সহযোগী অধ্যাপক ম্যুরেন মিলার। তিনি বলেন, চীন সরকারের দেওয়া তথ্য–উপাত্ত আন্তর্জাতিক পর্যায়ে গ্রহণযোগ্য নাও হতে পারে।

Continue Reading

আন্তর্জাতিক

করোনার উৎস সন্ধানে ‘শেষ সুযোগ’ ডব্লিউএইচওর

Published

on

করোনার উৎস সন্ধানে নতুন একটি টাস্কফোর্স গঠন করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। সংস্থাটি বলছে, কীভাবে করোনার সূত্রপাত হলো, তা খুঁজে বের করতেই এ টাস্কফোর্স। বলা হচ্ছে, এ টাস্কফোর্সই শেষ সুযোগ করোনার উৎস সন্ধানের জন্য। খবর ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির।

২০১৯ সালের শেষের দিকে এসে চীনের উহান শহরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। পরে তা মহামারির আকার ধারণ করে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। তবে ভাইরাসটির উৎস কী ছিল, তার জবাব করোনা শনাক্তের দেড় বছরের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও মেলেনি।

ডব্লিউএইচওর নতুন টাস্কফোর্সটি গঠন করা হয়েছে ২৬ জন বিশেষজ্ঞকে নিয়ে। নাম রাখা হয়েছে সায়েন্টিফিক অ্যাডভাইজরি গ্রুপ অন দ্য অরিজিনস অব নভেল প্যাথোজেনস (সাগো)। করোনা প্রাণী থেকে মানুষের শরীরে এসেছে, নাকি উহানের কোনো পরীক্ষাগারের দুর্ঘটনা থেকে ছড়িয়েছে, তা যাচাই করে দেখবে নতুন এ দল; যদিও পরীক্ষাগার থেকে করোনা ছড়ানোর বিষয়টি প্রথম থেকেই নাকচ করে এসেছে চীন।

এর আগেও অবশ্য করোনার উৎস সন্ধানে একটি দল গঠন করেছিল ডব্লিউএইচও। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতেই চীনে গিয়ে তদন্ত চালায় দলটি। করোনা বাদুড় থেকে মানুষের শরীরে এসেছে—এমন ধারণার ওপরই শেষ পর্যন্ত জোর দেয় তারা। তবে এ সিদ্ধান্তে আপত্তি জানান সংস্থার প্রধান তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস। তাঁর দাবি ছিল, পর্যাপ্ত তথ্য ও চীনের স্বচ্ছতার অভাবে তদন্তকাজে বিঘ্ন ঘটেছে।

ডব্লিউএইচওর এবারের টাস্কফোর্সে অবশ্য সবাই নতুন নয়। চীনে তদন্ত করতে যাওয়া আগের দল থেকেও ছয়জন রয়েছেন এতে। সাগোর সদস্যরা করোনা ছাড়াও ঝুঁকি সৃষ্টি করতে পারে—এমন জীবাণু নিয়েও তদন্ত করবেন। ডব্লিউএইচওর প্রধান বলেন, আগামী দিনে নতুন কোনো রোগের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে নতুন জীবাণুগুলো কোথা থেকে আসছে, তা বোঝাপড়া করা দরকার।

নতুন টাস্কফোর্সের বিষয়ে ডব্লিউএইচওর জরুরিবিষয়ক পরিচালক মাইকেল রেয়ান বলেন, করোনার উৎস সন্ধানে সাগোর তদন্তই হবে শেষ সুযোগ। আর জাতিসংঘে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত বলেছেন, সাগোর তদন্তকে ‘রাজনৈতিকীকরণ’ করা যাবে না।

এদিকে ডব্লিউএইচও এমন এক সময় টাস্কফোর্স গঠন করল, যখন উহানের লাখো মানুষের রক্তের নমুনা পরীক্ষার উদ্যোগ নিয়েছে চীন। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনের খবরে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালের শেষ ভাগে করোনা ছড়িয়ে পড়ার শুরুর দিকে সংগ্রহ করা দুই লাখের বেশি রক্তের নমুনা নতুন করে পরীক্ষার পরিকল্পনা করেছে চীন। এসব নমুনা উহান ব্লাড সেন্টারে সংরক্ষণ করা রয়েছে। এ পরীক্ষা করোনার উৎস এবং কখন ও কীভাবে এটি মানবদেহে ছড়িয়েছে, সেসব নিয়ে আরও সুনির্দিষ্ট ও স্বচ্ছ তথ্য জানাতে পারবে।

Continue Reading

আন্তর্জাতিক

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের পর এবার নতুন আতঙ্ক কলম্বিয়ান ভ্যারিয়েন্ট

Published

on

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের পর এবার নতুন আতঙ্ক হয়ে উঠেছে করোনাভাইরাসের কলম্বিয়ান ভ্যারিয়েন্ট। বেলজিয়ামের এক নার্সিং হোমে এই ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত সাত জনের মৃত্যুর পর আলোচনায় B-1-621 ভ্যারিয়েন্ট।

দেশটিতে মৃত্যু হওয়া প্রত্যেকেই ২ ডোজ ভ্যাকসিনগ্রহীতা ছিলেন। বয়স ছিল ৮০ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে। ওই নার্সিং হোমের কর্মীসহ মোট ২১ জনের দেহে মিলেছে করোনার নতুন ধরনটির সন্ধান।

ট্রু বার্গ নার্সিং হোম ম্যানেজার ক্যাথেলিন বয়ডার্স জানান, শুরুতে করোনা আক্রান্ত একজনের শারীরিক অবস্থা খারাপ হয়ে পড়ে। ক্রমেই আরও ছয়জন গুরুতর অসুস্থ হয় এবং মৃত্যু হয়। সবারই ডবল ডোজ টিকা নেয়া ছিল।

কলম্বিয়ায় এই মুহূর্তে ৯৫ শতাংশ করোনা আক্রান্তই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট সংক্রমিত হলেও ১ শতাংশের মতো রোগীর দেহে পাওয়া গেছে কলম্বিয়ান ভ্যারিয়েন্টের উপস্থিতি। যুক্তরাষ্ট্রের ২ শতাংশ সংক্রমিতের মধ্যে করোনার নতুন ধরনটির অস্তিত্ব মিলেছে। যুক্তরাজ্যে এ পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছে ৩৭ জন ।

ধারণা করা হচ্ছে, সম্প্রতি বিভিন্ন লাতিন দেশে ভ্রমণে গিয়ে আক্রান্ত হন তারা। কলম্বিয়ান ভ্যারিয়েন্ট করোনার অন্যান্য ধরনের তুলনায় বেশি সংক্রামক কী না সে বিষয়ে গবেষণা শুরু হয়েছে কয়েকটি দেশে।

Continue Reading

আন্তর্জাতিক

দুই ধরনের দুই ডোজ টিকায় হতে পারে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

Published

on

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দুই ধরনের টিকার দুই ডোজ নেওয়া নিয়ে গবেষণা চলছে। অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন গ্রুপের অধ্যাপক ম্যাথিউ স্ন্যাপ বলছেন, এক ডোজ অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও আরেক ডোজ ফাইজারের টিকা নিলে প্রাপ্তবয়স্কদের শরীর ঠান্ডা হয়ে যাওয়া, মাথাব্যথা ও মাংসপেশিতে ব্যথার মতো উপসর্গ দেখা দিতে পারে। তবে এগুলো খুব গুরুতর নয়। খবর বিবিসির।

অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন গ্রুপের অধ্যাপক ম্যাথিউ স্ন্যাপ বলেন, গবেষণায় যে এ ধরনের তথ্য পাওয়া যাবে, তা তাঁরা আশা করেননি।

গত ফেব্রুয়ারি মাসে দ্য কম-কভ নামে একটি গবেষণা পরিচালিত হয়। তাতে দেখা গেছে, প্রথম ডোজ টিকা নেওয়ার পরে অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিলে দীর্ঘ মেয়াদে সুরক্ষা পাওয়া যায়। করোনার নতুন ধরন থেকে সুরক্ষা পেতে ও সরবরাহ বিঘ্নিত হলে ক্লিনিকগুলোকে দুই ধরনের দুই ডোজ টিকা দিতে বলা হয়েছে।
কানাডার ওন্টারিও ও কুইবেক প্রদেশের কর্তৃপক্ষ বলছে, তারা শিগগিরই মিশ্র টিকা ব্যবহারের পরিকল্পনা নিয়েছে।

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই গবেষণায় ৫০ ঊর্ধ্ব ৮৩০ জন স্বেচ্ছাসেবককে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আগামী জুন মাসে এই গবেষণার পূর্ণ ফলাফল প্রকাশিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। গবেষণার প্রাথমিক তথ্য ল্যানসেট মেডিকেল জার্নালে একটি গবেষণা বিবরণীতে প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষণায় দেখা গেছে, যারা অ্যাস্ট্রাজেনেকার দুই ডোজ টিকা চার সপ্তাহের মধ্যে নিয়েছেন, তাঁদের প্রতি ১০ জনের মধ্যে একজনের জ্বর জ্বর ভাব দেখা গেছে।

অন্যদিকে যাঁরা অ্যাস্ট্রাজেনেকার এক ডোজ ও ফাইজারের আরেক ডোজ টিকা নিয়েছেন, তাঁদের ৩৪ শতাংশের মধ্যে জ্বর জ্বর ভাব দেখা দিয়েছে।

ট্রায়ালের প্রধান তদন্তকারী অধ্যাপক স্ন্যাপ বলেন, যাঁরা দুই ধরনের দুই টিকার ডোজ নিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে শরীর ঠান্ডা হয়ে যাওয়া, দুর্বলতা, মাথাব্যথা, অস্থিরতা ও মাংসপেশির ব্যথার মতো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।

গত এপ্রিল মাসে ১ হাজার ৫০ জন স্বেচ্ছাসেবীর ওপর মডার্না ও নোভাভ্যাক্সের মিশ্র টিকার গবেষণা চালানো হয়। দ্বিতীয় ডোজ টিকা নেওয়ার পরেও অনেকের মধ্যে দুর্বলতার মতো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

Continue Reading
সংগঠন1 week ago

জিডিএফ বর্ষপূর্তি ও সাইন্টিফিক সেমিনারের পোস্টার উন্মোচন

জাতীয়2 weeks ago

চিকিৎসক বুলবুল হত্যা: পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট

জাতীয়1 month ago

প্রেসক্রিপশন ছাড়া এন্টিবায়োটিক বিক্রি করলে ফার্মেসির লাইসেন্স বাতিল

ক্যারিয়ার1 month ago

জনস্বাস্থ্য ডেন্টিস্ট্রি বিভাগে পদসৃজন -(নিপসম)

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়1 month ago

অ্যান্টিবায়োটিকের মোড়ক হবে লাল, যথেচ্ছ ব্যবহার রোধে হচ্ছে আইন

জাতীয়1 month ago

দাউদকান্দিতে অবৈধ হাসপাতাল-ক্লিনিকের রমরমা বাণিজ্য

জাতীয়2 months ago

৭ ছাত্র নিরুদ্দেশ: চিকিৎসক শাকিরের সহযোগী ভিলার স্বীকারোক্তি

সিলেট বিভাগ2 months ago

চিকিৎসককে ছুরিকাঘাতের হুমকি দিয়ে ডেন্টাল চেম্বারে ছাত্রলীগ নেতার চাঁদাবাজি!

সংগঠন2 months ago

ডা: মোত্তাকিন আহমেদ স্মরণে বিএসপিডি’র দোয়া মাহফিল

সংগঠন2 months ago

চিকিৎসকদের জন্য লিডারশীপ এক্সেলেন্সি শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

কলাম2 months ago

স্বাস্থ্য খাতে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্ব

জাতীয়2 months ago

সংস্থা বলছে জঙ্গি – পরিবারের দাবি ডাঃ শাকির নির্দোষ

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর2 months ago

দেশে রেকর্ড সংখ্যক ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত

জাতীয়2 months ago

প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন কার্যক্রম কেউ ঠেকাতে পারবে না – স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জাতীয়2 months ago

বিএসএমএমইউ সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

জাতীয়2 months ago

ডেন্টাল সার্জন অবসরে, কর্তৃপক্ষের সম্মতিতে চিকিৎসা দিচ্ছে টেকনিশিয়ান

জাতীয়2 months ago

সিআইডি পরিচয়ে ‘চিকিৎসক’ তুলে নেওয়ার অভিযোগ

জাতীয়2 months ago

ওষুধের দাম বাড়ায় বিপাকে সাধারণ মানুষ

পরামর্শ2 months ago

দাঁতের চিকিৎসার সময় যে তথ্যগুলো গোপন করবেন না!

জাতীয়2 months ago

হাসপাতালের ল্যাবে ইলিশ মাছ, সিলগালা করে দিলেন ম্যাজিস্ট্রেট

Advertisement

সম-সাময়িক

Subscribe for notification